শুটিং সেটে বকা দিলে তো যুদ্ধ লেগে যাবে

বিনোদন ডেস্ক

শুনলাম কলকাতার সিনেমা করছেন?

কলকাতার তিনজন পরিচালক যোগাযোগ করেছেন। কন্ট্রাক্ট সাইন করলেই বিস্তারিত জানাতে পারব। আমার তো গত বছরই কলকাতার সিনেমায় কাজ করার কথা ছিল। শুটিং শুরু হয়েও শেষ মুহূর্তে হয়নি।

ঢালিউডে নিরবের বিপরীতে অভিনয়ে অভিষেক হয়েছে মিথিলার
ঢালিউডে নিরবের বিপরীতে অভিনয়ে অভিষেক হয়েছে মিথিলার

কলকাতার একটি সংবাদমাধ্যমে আপনার বরাতে প্রকাশিত হয়েছে, ‘সৃজিত বউকে কোনো দিন ছবিতে নেবে না’।

কাজ করার জন্য তো সৃজিতকে বিয়ে করিনি। কাজ যখন হবে, তখন দেখা যাবে। আর কেনই-বা আমাকে সৃজিত মুখার্জির সঙ্গেই কাজ করতে হবে? সৃজিত গল্প ও চরিত্রের প্রয়োজনে যাকে খুশি তাঁকে নিয়ে কাজ করবে। ব্যাপারটা মোটেও এ রকম নয় যে তার বউ বলে আমাকে নিয়েই কাজ করতে হবে!

মিথিলা ও সৃজিত

মিথিলা ও সৃজিত

অভিনয়শিল্পী হিসেবে পরিচালক সৃজিতের সঙ্গে কাজ করার আগ্রহ আছে?

শুধু সৃজিত কেন, যেকোনো ভালো পরিচালকের সঙ্গে কাজ করার ইচ্ছা আছে। যেহেতু এখন পারসোনাল সম্পর্কও আছে, শুটিংয়ের সময় সেটে বকা দিলে তো যুদ্ধ লেগে যাবে (হাসি)। সেসব চিন্তা করেই হয়তো বিষয়টা বিবেচনাধীন থাকবে। আমার অন্য আরও প্রফেশন আছে, প্রফেশনাল কমিটমেন্ট ও নানা এনগেজমেন্ট আছে। হঠাৎ যেমন মূলধারার সিনেমায় অভিনয় করলাম, হঠাৎ সৃজিত মুখার্জির সিনেমাও করে ফেলব।

মিথিলা

চরকির সিরিজ ‘ঊনলোকিক’-এ অভিনয় করলেন।

ঊনলোকিক-এর পাঁচটা গল্পের একটায় আমি অভিনয় করেছি। গল্পটা তো খুবই ভালো। ম্যাজিক রিয়ালিজম। পরিচালক রবিউল আলম রবি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার এক বছরের জুনিয়র। তখন থেকেই চেনাপরিচয়। ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিল্ম মেকিংয়ে মাস্টার্সে ফার্স্ট হয়েছে। আমাকে যখন গল্প শোনায়, প্রচণ্ড এক্সাইটেড ছিলাম। একসঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতাও ভালো। এই সিরিজে ইরেশও ছিল। তাঁর সঙ্গে কাজের বোঝাপড়াও খুব ভালো। সব মিলিয়ে মনে হয়েছে, ভালো হয়েছে।

মায়ের সঙ্গে মিথিলা

মায়ের সঙ্গে মিথিলা

ঢালিউডে আপনার অভিষেক নিয়ে কতটা সন্তুষ্ট?

আমি যে ধরনের সিনেমা দেখি, ঢালিউডের মূলধারার বাণিজ্যিক ছবি তো সেই মানের নয়। যে রকম অভিনয় করি, সেটাও এখানে হয় না। হঠাৎ ইন্টারেস্টেড হওয়ার এটাও প্রধান কারণ। আমি নিজে যেটা করি না, সেটা করে দেখি। কাজ করতে গিয়ে মনে হয়েছে, পরিচালক অনন্য মামুনের সিনেমা আমজনতার হলেও একটা মান থাকে।

Loading...