বিধিনিষেধের মধ্যেও কোথাও কোথাও যানজট

নিজস্ব প্রতিবেদক

কঠোর বিধিনিষেধে বাসা থেকে না বের হলেও জরুরি মামলার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রস্তুত করতে রাজধানীর রায়েরবাগের বাসা থেকে হাইকোর্টে এসেছেন আইনজীবী ফকির মোহাম্মদ মেহেদি। তিনি জানান, সড়কে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য রিকশার যাত্রীদের তেমন একটা তল্লাশি করছেন না। তবে ব্যক্তিগত গাড়ি ও অন্যান্য যানবাহনকে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখেছেন তিনি।

সকালে ব্যক্তিগত কাজে বাইরে বের হয়েছিলেন খিলগাঁওয়ের বাসিন্দা বেসরকারি চাকরিজীবী খন্দকার রনি। তিনি জানান, অন্যান্য দিনের চেয়ে আজ মঙ্গলবার বেশি মানুষ বাইরে বের হয়েছে। গত পাঁচ দিনে বাইরে যানবাহন ও মানুষ কম ছিল।

ডিএমপি ট্রাফিকের মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার এস এম বজলুর রশিদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘যেহেতু এই এলাকায় ব্যাংক-বিমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে, অফিস সময়ের শুরুতে সকালের দিকে এই এলাকায় গাড়ির অল্প চাপ ছিল। তবে এখন আর তেমন চাপ নেই। আমরা চেক করছি, যৌক্তিক কারণ ছাড়া বের হলে চালক ও গাড়ির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

ট্রাফিক রামপুরা জোনের সহকারী কমিশনার তানভির রহমান বলেছেন, ‘আমার এলাকায় যানবাহনের তেমন চাপ নেই। সড়কে রিকশাসহ অন্যান্য যানবাহনের উপস্থিতি আগের মতোই।’

হাতিরঝিল এবং সংলগ্ন এলাকাগুলোয় যানবাহনের চাপ রয়েছে বলে জানিয়েছেন এই এলাকায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তা কাজী মিজানুর রহমান

Loading...