চুমু খেয়ে বিপাকে, অতঃপর ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ

একেটিভি ডেস্ক

করোনাভাইরাসের প্রকোপ আবারও বাড়ছে যুক্তরাজ্যে। দেশটিতে এই ভাইরাসের সংক্রমণ হাজারের কোটায় নেমে এসে আবারও তা বেড়ে ১৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এই যখন পরিস্থিতি তখন ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানককের চুমু খাওয়ার ছবি প্রকাশ পায়। আর এতে বিপাকে পড়েন তিনি। অবশেষে পদত্যাগ করলেন হ্যানকক।

শনিবার পদত্যাগ করেছেন হ্যানকক। কারণ, সরকার করোনার স্বাস্থ্যবিধি নিজেই ভঙ্গ করেছেন তিনি। যদিও সামাজিক দূরত্বের এই বিধিনিষেধ ভেঙে সহকারীকে চুমু খাওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমাও চেয়েছেন তিনি। কিন্তু সমালোচনা থামেনি। ফলে পদ ছাড়তে বাধ্য হলেন তিনি।

এর আগে যুক্তরাজ্যের গণমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গিনা কোলাডঅ্যাঞ্জেলো নামের ওই সহকারীকে ম্যাট হ্যানকক নিজেই নিয়োগ দিয়েছিলেন। তাঁর সঙ্গে অন্তরঙ্গ ছবি প্রকাশ পাওয়ার পর দুঃখ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেছিলেন, তিনি মানুষকে হতাশ করেছেন।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দ্য সানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হ্যানকক ও কোলাডঅ্যাঞ্জেলো দুজনই বিবাহিত। তাঁদের তিনটি করে সন্তানও রয়েছে। তাঁদের অন্তরঙ্গ ছবি গত ৬ মে স্বাস্থ্য বিভাগের ভেতরেই তোলা হয়।

 

যদিও যুক্তরাজ্যে বিধিনিষেধ চললেও কাজের সময় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টি আইনি বাধ্যবাধকতার মধ্যে নেই। তবে সরকারের পরামর্শ হচ্ছে, যেখানে সম্ভব মানুষ যেন দুই মিটার বা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে অন্তত এক মিটার দূরত্ব বজায় রাখে। পাশাপাশি দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে এ নিয়ম মানতে হবে বা মাস্ক পরতে হবে।

এদিকে ওই ছবি প্রকাশের পর লেবার পার্টির পক্ষ থেকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের প্রতি হ্যানকককে মন্ত্রিসভা থেকে বরখাস্ত করার দাবি জানানো হয়েছিল। তাঁর অবস্থানকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলেছিল লেবার পার্টি। তবে ডাউনিং স্ট্রিট বলেছিল, প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন হ্যানকককে ক্ষমা করেছেন এবং বিষয়টি এখানেই শেষ ভাবতে বলেছেন।

 

কিন্তু এখানেই শেষ হলো না। বরিস জনসনের কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন হ্যানকক। যদিও যুক্তরাজ্যে করোনা মোকাবিলায়, বিশেষ করে করোনার টিকাদান কর্মসূচিতে মুখ্য ভূমিকায় ছিলেন তিনি।

বরিসকে লেখা চিঠিতে হ্যানকক বলেন, এই মহামারি কালে জনগণ ব্যাপক ত্যাগ স্বীকার করেছে। তাদের প্রতি সরকারের দায়িত্ব রয়েছে। আর ম্যাট হ্যানককের পদত্যাগে দুঃখ প্রকাশ করেছেন বরিস।

Loading...