কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দিকে তাকিয়ে ব্যাংকগুলো

নিজস্ব প্রতিবেদক

ই-ভ্যালি, আলেশা মার্টসহ বিভিন্ন ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম বা প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য কেনাকাটার ক্ষেত্রে কয়েকটি ব্যাংক তাদের কার্ডে লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে। এসব কার্ডে প্রতিষ্ঠানগুলোতে লেনদেন সুবিধা আবার চালু হবে কি না, এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছে ব্যাংকগুলো।

গতকাল বৃহস্পতিবার ই-কমার্স নিয়ে এক সভা শেষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান জানান, গ্রাহক পণ্য বুঝে পাওয়ার পর ডেলিভারি বার্তা দিলেই বিক্রেতা পণ্যের মূল্য পাবেন। আর এ প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গেটওয়ের মাধ্যমে এ অর্থ লেনদেন হবে। তবে তাঁর পরামর্শ, গ্রাহকেরা যেন ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড, বিকাশ বা নগদের মতো মাধ্যম ব্যবহার করে কেনাকাটা করেন। তাঁরা যেন আগাম নগদ অর্থ পরিশোধ না করেন।
সম্প্রতি বেশ কিছু ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিতর্ক দেখা দেওয়ায় প্রতিষ্ঠানগুলোতে লেনদেনের ক্ষেত্রে কার্ডের ব্যবহার বন্ধ করে দেয় ব্র্যাক ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ও ব্যাংক এশিয়া।

কার্ডে লেনদেন নিষেধাজ্ঞার তালিকায় থাকা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ই-ভ্যালি, আলেশা মার্ট, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা শপিং, সিরাজগঞ্জ শপিং, আলাদিনের প্রদীপ, বুম বুম, কিউকম, আদিয়ান মার্ট ও নিডস ডটকম বিডি।

কার্ড সেবা বন্ধ রাখা দুটি ব্যাংকের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে একেটিভিকে জানান, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংক ই-কমার্সের লেনদেন নিয়ন্ত্রণ করবে। এটা খুবই ভালো সিদ্ধান্ত। কিন্তু কবে থেকে এটা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে যাবে এবং এ-সংক্রান্ত নীতিমালা কী হবে, তা জানতে আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। তত দিন পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানগুলোতে লেনদেনের ক্ষেত্রে কার্ডের ব্যবহার বন্ধ থাকতে পারে।’

ই-ভ্যালি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তারা বিপুল ছাড় দিয়ে লোকসানে পণ্য বিক্রি করছে। যে কারণে দেশের ই-কমার্স ব্যবসায় অসুস্থ প্রতিযোগিতা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে ভালো ও সৎ ই-কমার্স ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন এবং ভবিষ্যতে এ খাতের প্রতি মানুষের আস্থা নষ্ট হবে।

Loading...