১৬ ইউপির ১০টিতে বিএনপির মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলার ১৬টি ইউপিতে আগামী ১১ নভেম্বর নির্বাচন হচ্ছে। এর মধ্যে তানোরে ৭টি ও গোদাগাড়ী ৯টি ইউপিতে নির্বাচন হবে।

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার বিষয়ে দলীয় সিদ্ধান্ত থাকলেও রাজশাহীর তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলায় ১৬টি ইউপির মধ্যে ১০টিতে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির ১০ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিএনপির এই ১০ নেতা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহীর তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলার ১৬টি ইউপিতে আগামী ১১ নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে তানোরে ৭টি ও গোদাগাড়ী উপজেলার ৯টি ইউপিতে নির্বাচন হবে। তানোর উপজেলার সাতটির মধ্যে ছয়টি ইউনিয়নে বিএনপির ছয়জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তবে গোদাগাড়ী উপজেলায় এ পর্যন্ত মাত্র চারটি ইউনিয়নে বিএনপির চারজনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করার খবর পাওয়া গেছে। ১৭ অক্টোবর মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার শেষ দিন।

তানোরে সাতটি ইউনিয়নের মধ্যে কলমা ইউনিয়নে থানা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক, বাধাইড়ে ইউনিয়ন বিএনপির সহসভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাবেক সহসভাপতি কামরুজ্জামান, সরনজাই ইউনিয়নে থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি মোজাম্মেল হক খান ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান, চান্দুড়িয়া ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মফিজ উদ্দিনের ছেলে মাহফুজুর রহমান, কামারগাঁ ইউনিয়নের থানা যুবদলের সদস্য আলমগীর হোসেন ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম এবং পাঁচন্দর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মোমিনুল হক মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে বাধাইড় ইউনিয়ন বিএনপির সহসভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, জনগণ পাশে থাকলেই তিনি নির্বাচনে থাকবেন। নির্বাচন না করার দলীয় সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলে তো আর নির্বাচন করার পরিবেশ নেই। এখন ব্যক্তি ইমেজেই নির্বাচন করতে হবে। সেই প্রস্তুতিই তিনি নিচ্ছেন।

কামারগাঁ ইউনিয়নর বিএনপির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম বলেন, তাঁর নির্বাচনের মাঠ ভালো। এখন মাঠে যদি থাকতে দেয় তাহলে নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।
এ নির্বাচন কমিশনারের অধীনে কোনো নির্বাচন করার পরিবেশ নেই। এ জন্য দল নির্বাচন করছে না। বিএনপির প্রার্থীকে মানুষ ভোট দিতে চাইলেও দিতে পারছে না।
মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক, তানোর উপজেলা বিএনপি
কলমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও থানা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক বলেন, এখন পর্যন্ত নির্বাচনের পরিবেশ ভালো আছে। ১৭ অক্টোবর শেষ দিনে তিনি মনোনয়ন জমা দেবেন।

গোদাগাড়ী উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়নে বিএনপির সমর্থকদের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে বাসুদেবপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি হাবিবুর রহমান, মোহনপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হোসেন, দেওপাড়া ইউনিয়নে থানা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন এবং পাকড়ী ইউনিয়নে উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আনারুল ইসলাম মনোনয়নপত্র ফরম সংগ্রহ করেছেন।

নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান বলেন, ‘পরিবেশ ভালো। তবে একটু চাপ তো রয়েছেই। তিনি বর্তমান চেয়ারম্যান, এর আগেও দুবার নির্বাচিত হয়েছিলেন। এবারও নির্বাচিত হবেন বলে তিনি আশাবাদী।

এ বিষয়ে তানোর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, এ নির্বাচন কমিশনারের অধীনে কোনো নির্বাচন করার পরিবেশ নেই। এ জন্য দল নির্বাচন করছে না। বিএনপির প্রার্থীকে মানুষ ভোট দিতে চাইলেও দিতে পারছে না। আবার কোথাও বিএনপির প্রার্থী ভোটে পাস করলেও কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ জন্য দলের কেউ নির্বাচন করলে নিজ দায়িত্বে করছেন।

দ্বিতীয় ধাপে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ২০ অক্টোবর।

এ নির্বাচন কমিশনারের অধীনে কোনো নির্বাচন করার পরিবেশ নেই। এ জন্য দল নির্বাচন করছে না। বিএনপির প্রার্থীকে মানুষ ভোট দিতে চাইলেও দিতে পারছে না।
মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক, তানোর উপজেলা বিএনপি
কলমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও থানা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক বলেন, এখন পর্যন্ত নির্বাচনের পরিবেশ ভালো আছে। ১৭ অক্টোবর শেষ দিনে তিনি মনোনয়ন জমা দেবেন।

গোদাগাড়ী উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়নে বিএনপির সমর্থকদের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে বাসুদেবপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি হাবিবুর রহমান, মোহনপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হোসেন, দেওপাড়া ইউনিয়নে থানা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন এবং পাকড়ী ইউনিয়নে উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আনারুল ইসলাম মনোনয়নপত্র ফরম সংগ্রহ করেছেন।

নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান বলেন, ‘পরিবেশ ভালো। তবে একটু চাপ তো রয়েছেই। তিনি বর্তমান চেয়ারম্যান, এর আগেও দুবার নির্বাচিত হয়েছিলেন। এবারও নির্বাচিত হবেন বলে তিনি আশাবাদী।

এ বিষয়ে তানোর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, এ নির্বাচন কমিশনারের অধীনে কোনো নির্বাচন করার পরিবেশ নেই। এ জন্য দল নির্বাচন করছে না। বিএনপির প্রার্থীকে মানুষ ভোট দিতে চাইলেও দিতে পারছে না। আবার কোথাও বিএনপির প্রার্থী ভোটে পাস করলেও কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ জন্য দলের কেউ নির্বাচন করলে নিজ দায়িত্বে করছেন।

দ্বিতীয় ধাপে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ২০ অক্টোবর।

Leave A Reply

Your email address will not be published.