Ultimate magazine theme for WordPress.

বুথে আগুন, বাধা-ভাঙচুর ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগে চলছে ভোট

বুথে আগুন, বাধা-ভাঙচুর ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগের মধ্য দিয়েই চলছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগও পাওয়া যাচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়েছে রাজধানীর প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ। এরইমধ্যে দিনের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং দুই সিটিতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মূল প্রতিদ্বন্দ্বী চার মেয়র প্রার্থী ভোট দিয়েছেন।

তবে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনও সহিংসতার খবর পাওয়া না গেলেও উত্তর ও দক্ষিণ সিটির কিছু কিছু কেন্দ্রে বিএনপি পোলিং এজেন্ট নিয়োগ ও কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

দিনের শুরুতেই ভোটার সংখ্যা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে ভোটার উপস্থিতি। এরই মধ্যে বিচ্ছিন্ন কিছু সংঘর্ষের খবরও পাওয়া যাচ্ছে। বিশেষ করে কাউন্সিলর প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও মারধরের ঘটনারও খবর এসেছে।

ভোটগ্রহণের কিছুক্ষণ পরই রাজধানীর তেজগাঁওয়ের সিভিল এভিয়েশন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের দুই কাউন্সিলর আবদুল্লাহ আল মঞ্জু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফ উদ্দিন কাঞ্চনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে কেন্দ্রের সামনে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফ উদ্দিন কাঞ্চনের মেয়ে নাজলী আশরাফ সঞ্চারী বলেন, ‘আমার বাবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় মঞ্জু আঙ্কেলের ছেলেরা আমাকে মেরেছে। কেন্দ্র থেকে আমাদের সব এজেন্ট বের করে দেয়া হয়েছে।’

কাউন্সিলর প্রার্থী কাঞ্চন বলেন, ‘আমাকেও মারধর করা হয়েছে। আমার ৭ সমর্থক আহত। তাদের সোহরাওয়ার্দীসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আমার মেয়েকেও মারধর করা হয়েছে।’

এদিকে গেন্ডারিয়া হাইস্কুলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে বেশকিছু চেয়ার ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এই ওয়ার্ডে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়। পরে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।ভোট শুরুর কিছুক্ষণ পরই বনশ্রী আইডিয়াল স্কুলের ধানের শীষের পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আওয়াল দাবি করেন, তিনি যে দুই কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন সেখানে ধানের শীষের পোলিং এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেয়া হয়েছে। কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা দেয়া হচ্ছে। যদিও তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পোলিং এজেন্টরা এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

গেন্ডারিয়ার ফরিদাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী মিনুর সমর্থকরা বিদ্রোহী প্রার্থী মর্তুজা জামালের বুথ ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মিরপুর ১০ আদর্শ স্কুল সেন্টারে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এর অভিযোগ উঠেছে বিএনপির সমর্থকদের বিরুদ্ধে। ওই কেন্দ্রের বাইরে বুথেও আগুন দেয়া হয়।

উত্তরার ৪ নম্বর সেক্টরের নওয়াব হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে বিএনপি সমর্থিত এক কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাঁর এজেন্টদের মারধরের অভিযোগ উঠেছে। প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের লোকজনের বিরুদ্ধে এ মারধরের অভিযোগ ওঠে। পরে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীর এজেন্টেদের ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়ে তারা নিজেরাও বেরিয়ে যান। ওই কেন্দ্রে ভোট দিতে আসা আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেছেন, ওই প্রার্থী তাকে ঘটনাটি জানিয়েছেন।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মূল প্রবেশ পথে তাদের বাধা দেন ওই ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের ( ঝুড়ি প্রতীক) লোকজন। ওই লোকজনের গলায় মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ও কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের কার্ড ঝোলানো ছিল।

বাধা উপেক্ষা করে মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্টদের নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন তাদের হাত দিয়ে ধাক্কা দেন। একপর্যায়ে মোস্তাফিজুর রহমানকে চড় থাপ্পড়সহ মারধর শুরু করেন। এরপর মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্ট ছাড়াই ভেতরে প্রবেশ করলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন বেরিয়ে যান।

Leave A Reply

Your email address will not be published.