Ultimate magazine theme for WordPress.

আতিকেই সামনেই আ.লীগের দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সংঘর্ষ

রাজধানীর গুলশানে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় পাশেই ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে (ডিএনসিসি) আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। ভাংচুর করা হয়েছে তার সমাবেশের চেয়ারও।

বুধবার (২৯ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে গুলশানের শহীদ ফজলে রাব্বি পার্কে ঢাকা উত্তর ২০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. নাসির ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. জাহিদুর রহমানের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আতিকুলের নির্বাচনী সমাবেশ চলার সময় কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে হাজির হোন বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জাহিদুর রহমান। তাদের উপস্থিতিতে বাধা দেন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী নাছিরের কর্মী-সমর্থকরা। এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। ভাংচুর করা হয় আতিকুলের সমাবেশের চেয়ার।

এ সময় পার্কের মাঠে তৈরি মঞ্চে কথা বলছিলেন মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। মঞ্চে তার ভাই মাইনুল ইসলাম, তিন বোন আমেনা, হালিমা, রহিমা, আতিকুলের স্ত্রী শায়লা সাগুফতা, মেয়ে বুশরা আফরীন, বোনের স্বামী ও সন্তানের উপস্থিত ছিলেন।

সংঘর্ষের পরই দ্রুত সমাবেশস্থল থেকে চলে যান আতিকুলের পরিবারের সদস্যরা। দ্রুত বক্তব্য শেষ করে আতিকুল ইসলামও মঞ্চ ছেড়ে দেন। আতিকুল চলে যাওয়ার পরপরই আবারও দুপক্ষের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে মারামারি, ধাক্কাধাক্কি এবং চেয়ার দিয়ে পেটানোর ঘটনা ঘটে।

দলের দুইপক্ষের এমন কাণ্ডে ক্ষুব্ধ মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, পার্কের ভেতর কাউন্সিলরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত। এ ধরনের ঘটনা মেনে নেয়া যায় না। বিষয়টি তিনি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে জানিয়েছেন বলেও জানান।

উল্লেখ্য, মহাখালী, গুলশান-১, বনানী ও নিকেতন এলাকা নিয়ে গঠিত রাজধানীর অভিজাত ওয়ার্ড হিসেবে সুপরিচিত এই ওয়ার্ডে প্রথম দলীয় প্রার্থী করা হয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমানকে সমর্থন দেয়া হয়। এরপর নানা নাটকীয়তায় তাকে বাদ দিয়ে দলীয় সমর্থন বাগিয়ে নেন বর্তমান কাউন্সিলর মো. নাসিরকে। এরপর থেকে দুই প্রার্থীর মধ্যে টানা উত্তেজনা বিরাজ করছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.