পেন্স বক্তৃতা শুরু করতেই ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে স্লোগান

সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে অভিহিত করেছেন কতিপয় রক্ষণশীল লোক। তাঁরা সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশ্বাসঘাতক
স্থানীয় সময় ১৮ জুন ফ্লোরিডায় রক্ষণশীলদের সংগঠন ‘ফেইথ অ্যান্ড ফ্রিডম কোয়ালিশন’-এর সভায় বক্তব্য দিচ্ছিলেন পেন্স। তিনি বক্তৃতা শুরু করতেই মিলনায়তনে উপস্থিত একদল লোক তাঁকে উদ্দেশ করে ‘বিশ্বাসঘাতক’, ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। সভায় বড় ধরনের বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়ার আগেই এসব লোককে মিলনায়তনের বাইরে নিয়ে যায় পুলিশ।
সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করা পেন্স গত নির্বাচনের ফলাফল মেনে নিয়েছিলেন। তিনি ট্রাম্পের আহ্বান অমান্য করে কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে জো বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন।
৬ জানুয়ারি কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যয়ন করার পর ট্রাম্পের জালিয়াতির অমূলক দাবি উবে যায়। ট্রাম্প তাঁর ভাইস প্রেসিডেন্ট পেন্সকে দিয়ে নির্বাচনের ফল নিয়ে ঝামেলা পাকানোর শেষ চেষ্টা করেছিলেন। ৬ জানুয়ারি পেন্সের সভাপতিত্বে কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশন চলাকালে ট্রাম্পের সমর্থকেরা ক্যাপিটল হিলে হামলা করেন। ট্রাম্পের উসকানিতে হওয়া এই হামলায় জড়িত লোকজন পেন্সকে হত্যার হুমকি পর্যন্ত দিয়েছিলেন।
বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে ট্রাম্প অনুপস্থিত ছিলেন। তবে অনুষ্ঠানে পেন্স সস্ত্রীক উপস্থিত থেকে বাইডেনকে অভিনন্দন জানান। ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর পেন্সের জন্য এখন অতিরিক্ত নিরাপত্তা বলবৎ আছে।
সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন। পেন্সও রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। আগামী নির্বাচনে তাঁকেও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মনে করা হচ্ছে; যদিও রিপাবলিকান পার্টিতে এখনো ট্রাম্পের একচেটিয়া প্রভাব রয়েছে।
ফ্লোরিডায় রক্ষণশীলদের সমাবেশে পেন্স ‘মেক আমেরিকা গ্রেট অ্যাগেইন’ লেখা ক্যাপ মাথায় দিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। এই স্লোগানের ক্যাপ ট্রাম্প তাঁর নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যবহার করেছিলেন। পেন্স বক্তৃতা শুরু করতেই মিলনায়তনে হট্টগোল সৃষ্টি হয়। তার মধ্যেই পেন্স তাঁর বক্তৃতা চালিয়ে যায়|
পেন্স বলেন, ‘আমি একজন খ্রিষ্টান, আমি রক্ষণশীল ও আমি রিপাবলিকান।’ ট্রাম্পের অধীনে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করাকে নিজের জীবনের শ্রেষ্ঠ সম্মান বলে পেন্স তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।
বাইডেনের প্রশাসনকে বাম ধারার উল্লেখ করে পেন্স বলেন, ধর্ম ও রক্ষণশীলতার বিরুদ্ধে যেকোনো কার্যক্রমকে বাধা প্রদান করতে হবে। মার্কিন রক্ষণশীল ধারণাগুলোকে উজ্জীবিত করে আগামী বছরের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকানদের জয় নিশ্চিত করার আহ্বান জানান তিনি।
সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত জি-৭ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট বাইডেন দুর্বল নেতৃত্বের পরিচয় দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন পেন্স। বাইডেন প্রশাসন আমেরিকার ঘনিষ্ঠ মিত্র ইসরায়েলের পাশ থেকে সরে এসেছে বলে অভিযোগ করেন পেন্স। তাঁর মতে, এ কারণে মধ্যপ্রাচ্যে সহিংসতা বাড়ছে।
দেশের সীমান্ত রক্ষায় বর্তমান প্রশাসন ব্যর্থতা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন পেন্স। তাঁর উত্তরসূরি বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস সীমান্ত সমস্যা নিয়ে কার্যকর কোনো কাজ না করায় সমালোচনা করেন তিনি।
জলবায়ুসংক্রান্ত প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েও সমালোচনা করেন পেন্স। তিনি বলেন, এই চুক্তিতে ফিরে যাওয়া মানে শক্তিশালী অবস্থানের বদলে দুর্বলতা দেখানো। প্যারিস চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফিরে যাওয়া বিশ্বাসঘাতকতার শামিল বলে মন্তব্য করেন পেন্স।
দেশপ্রেমের শিক্ষাপদ্ধতি পরিবর্তন করে আমেরিকায় বিদ্বেষমূলক শিক্ষাপদ্ধতি চালু করা হচ্ছে বলে পেন্স বর্তমান প্রশাসনের সমালোচনা করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.