পত্নীতলায় হোম কোয়ারেন্টিন না মানায় ৩ জনকে জরিমানা

নওগাঁর পত্নীতলায় ভারত ফেরত ৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টিন ভঙ্গ করায় ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ৩টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন সরকার এই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

জরিমানাকৃতরা হলেন- পত্নীতলা উপজেলার দোচায় গ্রামের গোপাল চন্দ্র মোহন্তের ছেলে গোলাপ কুমার, নজিপুর গার্লস স্কুল সংলগ্ন এলাকার আমিনুল ইসলামের ছেলে আবু হানিফ ও বাদজাম ঘোষনগর গ্রামের আবদুল কবিরাজের ছেলে আইয়ুব হোসেন।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, তারা সবাই ১৩ মার্চ ভারত থেকে ফিরলে করোনা বিস্তাররোধে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্তু তারা হোম কোয়ারেন্টিনের শর্ত না মেনে বাজার সহ বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে। স্থানীয়রা বিষয়টি দেখতে পেয়ে প্রসাশন কে জানায়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে গোলাপ কুমার ও আবু হানিফকে ৫ হাজার টাকা ও আইয়ুব হোসেনকে ১০ হাজার জরিমানা করা হয়। এবং তাদের ১৪ দিনের আগে বাড়ি থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়।

এদিকে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ১৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ১ জন। সুস্থ হয়ে তিনজন বাড়িতে ফিরে গেছেন।

উল্লেখ্য, চীনে করোনা ভাইরাস প্রায় নিয়ন্ত্রণে চলে আসলেও চীনের বাইরে ব্যাপক আকারে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এতে বিশ্বব্যাপী প্রচণ্ড আতঙ্ক ও ভয়ের সৃষ্টি হয়েছে।

করোনা ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মৃত্যু হয়েছে ৯ হাজার ৩০৩ জনের। এর মধ্যে উৎপত্তিস্থল চীনে মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ২৪৫। চীনের বাইরে মারা গেছে ৬ হাজার ৩১ জন।

এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ২৭ হাজার ৫০৫ জন। এর মধ্যে ৮৫ হাজার ৯৬১ জন সুস্থ হয়েছে বাড়ি ফিরেছেন। চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৯২৮ জন। দেশটিতে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭০ হাজার ৪২০ জন। এছাড়া চীনের বাইরে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৪৪ হাজার ৩০৯ জন মানুষ।

বিশ্বজুড়ে বর্তমানে ১ লাখ ৩০ হাজার ১৩৮ জন আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। তাদের মধ্যে ১ লাখ ২৩ হাজার ২৪৫ জনের অবস্থা সাধারণ (স্থিতিশীল অথবা উন্নতির দিকে) এবং বাকি ৬ হাজার ৮৯৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আক্রান্তের অনুপাতে মৃত্যুর হার ১০ শতাংশ এবং সুস্থতার হার ৯০ শতাংশ।

এর আগে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান ড. টেড্রস আধানম গেব্রেইয়সুস অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেছেন, সরকারগুলো এই বৈশ্বিক মহামারি ঠেকাতে যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছে না। তিনি সরকারগুলোকে নিজ নিজ দেশের করোনাভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থা আরও বাড়ানোর ওপর জোর দিয়েছেন।

চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১৭৬টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।

Loading...