Ultimate magazine theme for WordPress.

“”বৈধ ভিসা নিয়ে ভারতে গিয়ে আটকর ২৬ বাংলাদেশী

নিজস্ব প্রতিনিধি | ০৭ আগষ্ট ২০২০

কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার রমনা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের রমনা ব্যাপারী পাড়া গ্রামের ২৬ জন জেলে ভারতে বৈধ ভিসা নিয়ে গিয়ে আটক হন। ভারতে দ্বিতীয় ধাপে লকডাউন চলার সময় ২৬ জন বাংলাদেশী ২টি মিনিবাসে করে পশ্চিমবঙ্গের আসামের জোরহাট জেলার চেংরাবান্দা চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে ফেরার জন্য ২ মে রাতে তারা রহনা করেন।তারা ভারতে গিয়ে জেলে ও খাবারকর্মী হিসাবে কাজ করতেন।কিন্তু পরের দিন ৩ মে তাদের সকালে ভারতের বাহারপুর এলাকা থেকে আসামের ধুবড়ি জেলা পুলিশ তাদের আটক করেন।গত ৫ মে ২৬ জনের বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও ফরের্নাস (সংশোধিত)অ্যাক্ট ২০০৪ এবং পাসপোর্ট অ্যাক্ট ১৯৬৭ সালের ধারা ভাঙ্গার জন্য তাদের আটক করা হয়। এদিকে স্বজনেরা তাদের মুক্তির দাবিতে একাধিকবার মানববন্ধন করেন চিলমারী থেকে ৩০ কি.মি.পথ পাড়ি দিয়ে তারা চলে যান জেলা শহর কুড়িগ্রামে।এদিকে ভারতের জেল হাজতে থাকা ২৬ জনের মধ্যে বকুল মিয়া (৫৭) নামে এক ব্যক্তি অসুস্থ হলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার মৃত্যু হয়।মৃত বকুল মিয়া সহ ২৫ জন কে দেশে ফিরে আনার জন্য আবারো জেলা শহরে মানববন্ধন করেন স্বজনেরা , জেলা প্রসাশকের কাছে স্বারকলিপি জমা দেন স্বজনেরা।স্বারকলিপি মাধ্যমে শুধু দেশে আসে বকুল মিয়ার লাশ, বাকী ২৫ জন কে দেশে ফিরিয়ে আনতে তারা ব্যর্থ হন।বকুল মিয়ার লাশ দেশে আনা হলে স্বজনেরা দাবি করেন তার মৃত্যুটা ছিলো রহস্যজনক। তার মৃত্যুর খবর পেয়ে বাকী২৫ জনের মধ্যে চলছে আতংঙ্ক।২৬ জনকে দফায় দফায় কোর্টে তুললেও মেলেনি তাদের মুক্তির রায়।সর্বশেষ তাদের মুক্তির জন্য ১৮ ই আগষ্ট(শনিবার) ২৫ জনকে কোটে তোলার দিন ধার্য করা হয়, কিন্তু ১৮ তারিখ কোর্টে তুললে ও তাদের মেলেনি মুক্তির পথ।কবে মিলবে তাদের এই মুক্তি, সেই অপেক্ষার প্রহর গুনতেছেন স্বজনেরা। এদিকে চিলমারী উপজেলা প্রসাশকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা সার্বক্ষিন তাদের পরিবারের খোঁজখবর রাখতেছি। আমরা তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করে যাইতেছি, যেন তাদের কোনো সমস্যা না হয় আমরা সেদিকে লক্ষ্য রাখতেছি। তবে আমরা আশা করতেছি তাদেরকে দ্রুত দেশে ফিরেয়ে আনতে পারবো।৭ই আগষ্ট ৪র্থ শুনানি৷

Leave A Reply

Your email address will not be published.