দুর্নীতির মামলায় তারেক-জোবায়দার শুনানি পিছিয়ে ২৯ মে ধার্য

দুর্নীতির মামলায় তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমানের রুল শুনানি পিছিয়ে ২৯ মে ধার্য করা হয়েছে। বুধবার ২০ এপ্রিল বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক শুনানির জন্য এ দিন ধার্য করেন।

 

 

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

 

 

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আয়ের বাইরে ৪ কোটি ৮১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৬১ টাকার মালিক হওয়া ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে রাজধানীর কাফরুল থানায় এ মামলা করা হয়।

ওই বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর দায়ের করা মামলায় তারেক রহমান, তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান ও শাশুড়ি ইকবাল মান্দ বানুকে আসামি করা হয়। মামলায় তারেক রহমানকে সহায়তা ও তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয় জোবায়দা ও তার মায়ের বিরুদ্ধে।

 

 

 

পরে একই বছর এ মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে তারেক রহমান ও তার স্ত্রী পৃথক রিট আবেদন করেন। ২০০৮ সালের ৩১ মার্চ এ মামলায় অভিযোগপত্র দেয় দুর্নীতি দমন কমিশন। এরপর আসামিরা এই মামলা বাতিলের আবেদন করলে হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল দেয়। মঙ্গলবার এই রিট মামলাগুলো কার্যতালিকায় এলে রুল শুনানির জন্য দিন ঠিক করেন হাইকোর্ট।

 

 

একই মামলার বৈধতা নিয়ে আরেকটি ফৌজদারি আবেদন করেছিলেন ডা. জোবায়দা। ওই সময় ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট।

 

 

ওই রুলের শুনানি শেষে ২০১৭ সালের ১২ এপ্রিল রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে মামলা বাতিলে জারি করা রুল খারিজ করে দেন। একই সঙ্গে ডা. জোবায়দাকে আট সপ্তাহের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণেরও নির্দেশ দিয়েছিলেন। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল করেন ডা. জোবায়দা। গত ১৩ এপ্রিল সেটিও খারিজ হয়ে যায়।

 

 

ঈদে নামছে একাধিক নতুন লঞ্চ, টিকিট বিক্রি শুরু

 

 

শিক্ষার্থীরা ছাড়লেও ব্যবসায়ীরা ভাঙল অ্যাম্বুলেন্স

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.