নেত্রকোনায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে দণ্ডিত দুই শিশু মুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেক

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে নেত্রকোনায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে দণ্ডিত দুই শিশু মুক্তি পেয়েছে। বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ দুই শিশুকে মুক্তি দিতে নির্দেশ দেন। অন্যদিকে আপিল শুনানি করে ওই দুই শিশুকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

এর আগে এই প্রতিবেদন যুক্ত করে দুই শিশুকে তাৎক্ষণিক মুক্তি দিতে স্বতঃপ্রণোদিত আদেশ চেয়ে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চে ই-মেইলের মাধ্যমে লিখিত আবেদনটি দাখিল করেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। বিষয়টি নজরে এলে হাইকোর্ট ওই দুই শিশুকে মুক্তির নির্দেশ দেন। এ ছাড়া আদেশের বিষয়টি নেত্রকোনার জেলা প্রশাসককে অবহিত করতে হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমানকে বলেন আদালত।

 

 

মোহাম্মদ সাইফুর রহমান একেটিভিকে বলেন, হাইকোর্ট ওই দুই শিশুকে মুক্তি দেওয়ার বিষয়ে জেলা প্রশাসককে অবহিত করার নির্দেশ দেয়। পরে হাইকোর্টের আদেশের বিষয়টি নেত্রকোনার জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হলে তারা মুক্তি পেয়েছে বলে নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক তথা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জানায়।

 

 

এদিকে এ বিয়ষে নেত্রকোণা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সুহেল মাহমুদ একেটিভিকে বলেন, ইতিমধ্যে আটকাদেশ বাতিল করে শিশুদের খালাস দেওয়া হয়।

অন্যদিকে বুধার বিকেল চারটার দিকে নেত্রকোনা জেল সুপার মো. আবদুল কুদ্দুস বলেন, দুই শিশুকে তাদের মা–বাবার কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

 

ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে দুই শিশুকে এক মাসের দণ্ডাদেশ দিয়েছেন নেত্রকোনার আটপাড়া উপজেলার সহকারী কমিশনার সুলতানা রাজিয়া। গত রোববার রাতে আটপাড়ায় সুলতানা রাজিয়া তাঁর নিজ কার্যালয়ে এই দণ্ডাদেশ দেন। একই সঙ্গে শিশু দুটিকে গাজীপুরে অবস্থিত শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে (বালক-বালিকা) পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরে শিশু দুটি মঙ্গলবার পর্যন্ত নেত্রকোনা জেলা কারাগারে রাখা হয়। তাদের মধ্যে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়েটির বয়স ১৫ বছর (জেএসসির নিবন্ধন কার্ড অনুযায়ী)।

আবেদন দাখিলের পর আইনজীবী শিশির মনির একেটিভিকে বলেন, বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। এর আগে শিশুদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়া হয়েছে, যা নজরে আনা হলে হাইকোর্ট প্রথমে স্বতঃপ্রণোদিত রুলসহ আদেশ দেন। পরবর্তী সময়ে ‘রাষ্ট্র বনাম আইন মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য’ শীর্ষক ওই মামলায় হাইকোর্ট ২০২০ সালের ১১ মার্চ রায় দেন।

 

রায়ে শিশু আইনের অধীন ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজা দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই বলে আদালত সিদ্ধান্ত দেন। ফলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেওয়া সাজা এখতিয়ারবহির্ভূত। ওই রায়ের অনুলিপি সংযুক্তি হিসেবে ই-মেইলে পাঠানো হয়েছে। দুই শিশুকে তাৎক্ষণিক মুক্তি দিতে স্বতঃপ্রণোদিত আদেশ চেয়ে লিখিত ওই আবেদন দাখিল করা হয়েছে।

 

এদিকে ওই দুই শিশুর পারিবার বলেছিল, অর্থনৈতিক অসচ্ছলতার কারণে প্রায় দুই বছর ধরে তারা দুজন লেখাপড়ার পাশাপাশি ঢাকায় তৈরি পোশাক কারখানায় চাকরি নেয়। এ সময় উভয়ের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্প্রতি ছেলেটিকে বিয়ে করার জন্য চাপ দেয় মেয়েটি। কিন্তু ছেলেটি তা প্রত্যাখ্যান করে। গত ঈদুল আজহায় তারা গ্রামের বাড়িতে আসে।

 

এরপর বিয়ের দাবিতে মেয়েটি গত সপ্তাহে বুধবার রাত থেকে ছেলের বাড়িতে অবস্থান নেয়। নিরুপায় হয়ে গত রোববার সন্ধ্যায় উভয় পরিবার তাদের বিয়ের আয়োজন করে। বাল্যবিবাহের খবর পেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুলতানা রাজিয়া সেখানে পুলিশ পাঠান। এরপর দুজনকে তাঁর কার্যালয়ে এনে রাত আটটার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসান। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ অনুযায়ী দুজনকেই এক মাসের জন্য আটকাদেশ দিয়ে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দশে দেয়।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত নায়িকা পরীমণি ফেসবুক লাইভে এসে অভিযোগ করেছেন, তার বনানীর বাসায় কেউ অভিযানে গিয়েছে। বুধবার বিকেলের দিকে পরিমণির বনানীর লেক ভিউ ১৯/এ নম্বর রোডের ১২ নম্বর বাড়িতে এ অভিযান শুরু হয়। বিষয়টি স্বীকারও করেছেন র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক খন্দকার আল মঈন।

 

দুই শিশুকে মুক্ত দিতে নির্দেশ

 

মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত 

 

আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমণির বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‍্যাব

 

তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে চিত্রনায়িকা পরীমণির বাসায় র‍্যাব অভিযান পরিচালনা করছে। অভিযান শেষে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে।

অভিযান চলাকালে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে পরীমণি তার বাসার বারান্দায় এসে নিচে দায়িত্ব পালনরত সাংবাদিকদের উপরে ওঠার জন্য ডাকতে থাকেন। এ সময় তিনি ভবনের পাঁচতলার বারান্দায় এসে সাংবাদিকদের বলেন, ভাই আপনারা উপরে কেন আসছেন না, আপনারা উপরে আসেন।

 

 

বিকেল পৌনে ৫টার দিকে পরীমণির বাসার নিচে দেখা যায়, র‍্যাব-১ এর একটি গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়া, পুলিশের বেশ কয়েকটি গাড়িও রয়েছে। বাসার আশপাশে পুলিশ সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন। মূল গেটের সামনে কয়েকজন র‍্যাব সদস্যকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। ছিলেন র‌্যাবের কয়েকজন নারী সদস্যও।

জানা গেছে, পরীমণির বাসার মূল ফটক বন্ধ করে র‍্যাব সদস্যরা অভিযান পরিচালনা করছেন। তবে ঘটনাস্থলে র‍্যাবের কোনো ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা না থাকায় প্রাথমিকভাবে অভিযান সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

সেখানে দায়িত্বরত এক র‍্যাব কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অভিযানটি মূলত পরিচালনা করছে র‍্যাব সদর দফতর, সহযোগিতায় রয়েছেন র‍্যাব-১ এর সদস্যরা।

এর আগে, ফেসবুক লাইভে এসে পরীমণি অভিযোগ করেন, তার বাসায় বিভিন্ন পোশাকে লোকজন এসে ফ্ল্যাটের দরজা খুলতে বলছেন। কিন্তু তিনি দরজা খুলতে ভয় পাচ্ছেন। এজন্য সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত

 

পরীমণি লাইভে বলেন, ওই ব্যক্তিরা বাসার গেট ভেঙে উপরে এসে বারবার কলিং বেল বাজাচ্ছেন। পরিচয় জানতে চাইলে তারা পুলিশের লোক বলে দাবি করছেন। যদিও তাদের গায়ে বিভিন্ন রঙের পোশাক থাকায় বিশ্বাস করতে পারছেন না তিনি।

এই অবস্থায় পরীমণি বনানী থানায় যোগাযোগ করেছেন বলেও লাইভে জানান। সেখান থেকে ফোর্স পাঠানোর কথা বলা হয়েছে। কিন্তু তারা এখনো এসে পৌঁছায়নি লাইভে বলেন পরী।

পরীমণির ভাষ্য, আমি এ কারণেই ভয় পাচ্ছিলাম। এখানে আমার কোনো নিরাপত্তা নেই। আমি এতো অসুস্থ। তিন দিন ধরে ঠিকমতো উঠতেই পারছি না। এক পর্যায়ে সহকর্মী, সাংবাদিক ও পরিচিতদের দ্রুত তার বাসায় যাওয়ার অনুরোধ করেন আলোচিত এ অভিনেত্রী।

মৌ ও পিয়াসার দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

 

গত জুন মাসে রাজধানীর একটি ক্লাবে পরীমণিকে হেনস্তা করার অভিযোগ ওঠে নাসির ইউ আহমেদসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে। সে অভিযোগও তিনি ফেসবুক লাইভে এসে জানান। এরপর তা আমলে নেয় প্রশাসন। পরবর্তী সময়ে পরীর মামলার পরিপ্রেক্ষিতে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়। যদিও প্রধান অভিযুক্ত নাসির ইউ আহমেদ গ্রেফতারের কয়েক দিন পরই জামিনে মুক্তি পেয়ে যান।

তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিবির গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মো. মশিউর রহমান বলেন, পরীমনির বাসায় অভিযানের বিষয়ে আমার জানা নেই। আমাদের টিমের কোনো সদস্য পরীমনির বাসায় যায়নি।

চুয়াডাঙ্গা ভালাইপুর মোড়ে কাচামালের আড়ৎ এ চম্পা রাণী দিবালকে চালিয়ে যাচ্ছে রমরমা বাংলা মদের…

ধনাঢ্য পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে লেট নাইট পার্টি করে আপত্তিকর ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইল করা আরও ১০-১২ জন মডেলের সন্ধান মিলেছে। তারা দু’একটি বিজ্ঞাপন ও ইউটিউবভিত্তিক নাটকে অভিনয় করে নিজেদের সামান্য পরিচিত করে ব্ল্যাকমেইলিংয়ে নামে। নিজেদের মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে এরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খুবই সক্রিয়। নিজেদের মধ্যে একটি চক্র গড়ে তুলে এসব মডেলরা ব্ল্যাকমেইলিং করে ধনাঢ্য পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে কোটি টাকা।

সম্প্রতি এই চক্রের দুই সদস্য মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের কাছ থেকেই এসব তথ্য জানতে পেরেছে পুলিশ।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা যায়, চক্রের অধিকাংশ সদস্য ঢাকার বাইরের নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। তারা মডেল হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে রাজধানীতে আসেন। ছোট কয়েকটি বিজ্ঞাপনে কাজ করার পর নিজেদের মডেল হিসেবে তেমন প্রতিষ্ঠিত করতে পারেনি । আবার অনেকে ইউটিউবভিত্তিক কয়েকটি নাটকে অভিনয় করে নিজেদের মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন। পরে এমন ৮-১০ জন কথিত মডেল একত্রে একটি চক্র গড়ে তোলেন। যার অন্যতম সদস্য ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌ।

আরও জানা যায়, এ চক্রের সদস্যরা বিজ্ঞাপন ও নাটকে কাজের সুবাদে রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত হোটেলে পার্টিতে যেতেন। সেখানে গিয়ে ধনাঢ্য পরিবারের সন্তানদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তুলতেন। ধনীর দুলালদের সঙ্গে সখ্যতার পর অনেক ক্ষেত্রে পার্টির পর তাদের সঙ্গে রাত কাটাতেন। লিপ্ত হতেন অসামাজিক কাজে। কথিত এসব মডেলদের মধ্যে অনেকে লেট নাইট পার্টির দৃশ্য মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় ধারণ করতেন।

পার্টি শেষ হওয়ার কয়েক দিন পরে এসব ধারণ করা ভিডিও এসব ধনীর দুলালদের পাঠিয়ে মোটা অংকের টাকা দাবি করতেন চক্রটির সদস্যরা। এদের মধ্যে অনেকেই নিজদের মান-সম্মান ও সামাজিক মর্যাদার ভয়ে চক্রটিকে টাকা দিয়ে ভিডিও ডিলিট করাতেন। আর যারা টাকা দিতে রাজি হতেন না তাদের পরিবারের লোকজনের কাছে কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসব ভিডিও ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিত। বাধ্য হয়ে টাকা দিতেন অনেকে।

ডিবি সূত্রে জানা যায়, ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌয়ের মোবাইল পরীক্ষা করে এমনই কয়েকটি ভিডিও পাওয়া গেছে। এসব ভিডিও দিয়েই মূলত ব্ল্যাকমেইল করা হতো।

মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত

বারে কিংবা পার্টি সেন্টারে এসব মডেলদের নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই লেট নাইট পার্টি হতো

ভিডিওগুলোতে দেখা যায়, রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত হোটেলের বারে কিংবা পার্টি সেন্টারে এসব মডেলদের নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই লেট নাইট পার্টি হতো। এসব পার্টিতে সমাজের বিত্তশালী পরিবারের সদস্যরা আসতেন। তারা মদ্যপান ও নাচ-গান করে রাত কাটাতেন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এ চক্রের সঙ্গে নিয়মিত লেট নাইট পার্টিতে যেতেন এমন ১০ ধনীর দুলালকে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়া হলেও তাদের কড়া নজরদারিতে রেখেছে পুলিশ।

মডেল চক্রের বিষয়ে ডিবি দক্ষিণের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশীদ জানান, এমন একটি চক্র রাজধানীতে সক্রিয় আছে জানতে পেরে তারা বারিধারা থেকে পিয়াসা ও মোহাম্মদপুর থেকে মৌকে গ্রেফতার করেন। দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের বিষয়ে অনেক তথ্যই তারা জানতে পেরেছেন। এসব তথ্য যাচাই-বাছাই শেষে তারা পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়ার দিকে অগ্রসর হচ্ছেন।

মুক্ত মুক্ত মুক্ত মুক্ত

উল্লেখ্য, গত গত রোববার রাতে রাজধানীর বারিধারায় থেকে পিয়াসা ও মোহাম্মদপুর থেকে মৌকে গ্রেফতার করে ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ। গ্রেফতারের সময় দুজনের কাছ থেকে মাদক ও ইয়াবা জব্দ করা হয়। পরে গুলশান থানায় পিয়াসার বিরুদ্ধে ও মোহাম্মদপুর থানায় মৌয়ের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়। পরে সোমবার তাদের আদালতে হাজির করা হলে আদালত পিয়াসা ও মৌকে তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

 

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে কখনো জেতেনি বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে কখনো জেতেনি বাংলাদেশ 

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি হবে ১ সেপ্টেম্বর। ১০ সেপ্টেম্বরের পঞ্চম টি-টোয়েন্টি দিয়ে শেষ হবে নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর। অস্ট্রেলিয়া সিরিজের মতো নিউজিল্যান্ড সিরিজেরও সবকটি ম্যাচ হবে মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। অবশ্য ম্যাচ শুরুর সময় এখনও নিশ্চিত করা হয়নি। তবে সবকটি ম্যাচই হবে দিবারাত্রির। অস্ট্রেলিয়া সিরিজের ম্যাচগুলো শুরু হচ্ছে সন্ধ্যা ৬টায়।

২০১৩ সালের পর এই প্রথম দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসছে নিউজিল্যান্ড। অবশ্য এ সময়ের মাঝে তিন দফা নিউজিল্যান্ড সফরে গেছে বাংলাদেশ। সর্বশেষ এ বছরের শুরুতে সীমিত ওভারের সিরিজ খেলে এসেছে বাংলাদেশ।

এ বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডে খেলে এসেছে বাংলাদেশ

গত বছর এমন সময়েই আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অধীনে দুটি ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ আসার কথা ছিল নিউজিল্যান্ডের। তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে স্থগিত হয়ে যায় সে সফর। শেষ পর্যন্ত সে সিরিজ আর হয়নি।

 

নিউজিল্যান্ডের এ সফরের পর সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসার কথা ছিল ইংল্যান্ডেরও। তবে ২০২৩ সালের মার্চে পিছিয়ে নেওয়া হয়েছে সেটি। ফলে এ বছরের অক্টোবরে শুরু হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের জন্য শেষ সিরিজ হচ্ছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেই।

 অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কাল টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও তেমন কিছুর হাতছানি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কাল টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জয়ের দেখা পাওয়া বাংলাদেশের জন্য নিউজিল্যান্ড সিরিজেও এই কীর্তি গড়ার হাতছানি থাকছে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মুখোমুখি পঞ্চম টি-টোয়েন্টিতে কাল প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে রেকর্ডটা আরেকটু মলিন। এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১০টি টি-টোয়েন্টি খেলেও কখনো জেতেনি বাংলাদেশ, হেরেছে দশটিতেই!

নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফরের সূচি

২৯ আগস্ট – প্রস্তুতি ম্যাচ, বিকেএসপি

১ সেপ্টেম্বর – ১ম টি-টোয়েন্টি, মিরপুর

৩ সেপ্টেম্বর – ২য় টি-টোয়েন্টি, মিরপুর

৫ সেপ্টেম্বর – ৩য় টি-টোয়েন্টি, মিরপুর

৮ সেপ্টেম্বর – ৪র্থ টি-টোয়েন্টি, মিরপুর

১০ সেপ্টেম্বর – ৫ম টি-টোয়েন্টি, মিরপুর

বাংলাদেশের হয়ে দারুণ বল করেন নাসুম আহমেদ

সম্বল যখন ১৩১ রান, তখন লড়াই করাটাই তো অনেক বড় ব্যাপার টি-টোয়েন্টিতে। বাংলাদেশের লক্ষ্যও ছিল তাই। বোলারদের প্রতি বার্তা ছিল, যতটা সম্ভব বেশি ডট বল করার।

সেই ডট বলের চেষ্টাতেই শুধু সফল হননি নাসুম আহমেদ, ১৯ রানে ৪ উইকেট নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে দেওয়ার মূল ভূমিকা পালন করেছেন এই বাঁহাতি স্পিনার।

 

সর্বশেষ জিম্বাবুয়ে সফরে নাসুম খেলেছিলেন একটি ম্যাচই। সেটিতে ৩ ওভারে গুনেছিলেন ৩৭ রান। তবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের আগের দিন হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো জানিয়েছিলেন, নাসুম খেলবেন। বাড়তি দায়িত্ব নেওয়ার কথাও মনে করিয়ে দিয়েছিলেন। নাসুম সেটি নিয়েছেনও।
বোলিংয়ে ইনিংসের প্রথম বলেই মেহেদী হাসান উইকেট পাওয়ার পর দ্বিতীয় ওভারেই নাসুমকে এনেছেন মাহমুদউল্লাহ। নাসুম সফল হয়েছেন প্রথম ওভারেই।

 

 

নাসুম জানালেন, ফিল্ডিংয়ে নামার আগেই অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ বলেছিলেন বেশি বেশি ডট বল করার কথা, ‘আমরা যখন ১৩১ রান করেছি, তখন নামার আগে (মাহমুদউল্লাহ) রিয়াদ ভাই বলছিলেন এ রানেই লড়াই করার কথা। ডট বল করে যতটুকু পারি চেষ্টার কথা বলেছিলেন। ওই ডট বলের চিন্তাই করছিলাম।’

 

 

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি–টোয়েন্টিতে এক ইনিংসে বাংলাদেশের সেরা বোলিং পারফরম্যান্স এখন নাসুমের

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের এ উইকেটের ব্যাটিং সহজ ছিল না। বল স্বাভাবিকভাবেই ব্যাটে আসছিল ধীরে। তবে নাসুমের দ্বিতীয় বলেই ছক্কা মেরে দেন জশ ফিলিপে।

সাকিব তাঁকে আরেকটু আক্রমণাত্মক হতে বলেছিলেন, ‘যখন প্রথম দুটো বল করলাম ব্যাক অব লেংথে, তখন সাকিব ভাই আমাকে বললেন, এই উইকেটে ধীরগতির বলটাই ভালো। এবং আরেকটু সামনে করলে ভালো হয়। তো ওটাই চেষ্টা করেছি।

 

 

১২টি ডট বল নেওয়া নাসুম প্রতি ওভারেই উইকেট নিয়েছেন।

নাসুমের চার ওভার মাহমুদউল্লাহ করিয়েছেন তিনটি ভিন্ন স্পেলে। ১২টি ডট বল নেওয়া নাসুম প্রতি ওভারেই উইকেট নিয়েছেন।

নাসুম জানালেন, মাহমুদউল্লাহ ও সাকিবের পরামর্শ মানার ফল পেয়েছেন, ‘চারটা ওভার যে করেছি, সব সময়ই সাকিব ভাই ও রিয়াদ ভাই আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। রিয়াদ ভাই বলেছিলেন, “ওকে ওর মতো বল করতে দে।” তো ডট বল করার চেষ্টাতেই সফল হয়েছি।’

 

 

উইকেটের সহায়তা পেয়ে স্পিনে দারুণ ফাঁদ পেতেছিলেন নাসুম

উইকেটে সহায়তা ছিল স্পিনারদের, সঙ্গে নিজেদের চেষ্টার কথাও বলেছেন নাসুম, ‘অস্ট্রেলিয়া দলকে নিয়ে একটাই চিন্তা ছিল যে আমরা জিতব। কাল আমি দোয়াও করছিলাম, আল্লাহ, এখনো আমরা একটা ম্যাচও জিতিনি। এবার যেন জিততে পারি। তো সবাই মিলে চেষ্টা করেছি, আলহামদুলিল্লাহ, সফল হয়েছি।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি–টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের হয়ে এখন সেরা বোলিং ফিগারটাও নাসুমের। তিনি ছাড়িয়ে গেছেন সাকিবকে। ২০১৬ সালে ব্রিজটাউনে সাকিব ৩ উইকেট নিয়েছিলেন ২৭ রানে।

 

 

চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আবার বাড়লো

 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আরও পাঁচ দিন বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার ।

মঙ্গলবার করোনাভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভা শেষে এ তথ্য জানান বৈঠকের সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, দোকানপাট খোলা হলেও সংশ্লিষ্টদের টিকা নিয়ে খুলতে হবে। নিজ নিজ ওয়ার্ড থেকে সবাইকে টিকা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, এখন ৫ আগস্ট পর্যন্ত বিধিনিষেধ রয়েছে। তবে ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দেওয়ার পর প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে ৫ আগস্টের পর বিধিনিষেধ আর বাড়বে কি না।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে বিধিনিষেধ চলছে, যা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। এবার সরকার থেকে কঠোরতম বিধিনিষেধের কথা বলা হলেও শেষ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের দাবির মুখে সেটা আর রাখতে পারেনি।

গত শুক্রবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক আদেশে জানানো হয়, ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী সব শিল্প ও কলকারখানা চলমান বিধিনিষেধের আওতাবহির্ভূত করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের পর শ্রমিকেরা গ্রামের বাড়ি থেকে দুর্ভোগ নিয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন কলকারখানার অভিমুখে রওনা হন।

 

 

একপর্যায়ে রোববার দুপুর পর্যন্ত গণপরিবহন চালুর অনুমোদন দেয় সরকার। লঞ্চের সময় অবশ্য গতকাল সোমবার ভোর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আরও পাঁচ দিন বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার ।

মঙ্গলবার করোনাভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভা শেষে এ তথ্য জানান বৈঠকের সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, দোকানপাট খোলা হলেও সংশ্লিষ্টদের টিকা নিয়ে খুলতে হবে। নিজ নিজ ওয়ার্ড থেকে সবাইকে টিকা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, এখন ৫ আগস্ট পর্যন্ত বিধিনিষেধ রয়েছে। তবে ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দেওয়ার পর প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে ৫ আগস্টের পর বিধিনিষেধ আর বাড়বে কি না।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে বিধিনিষেধ চলছে, যা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। এবার সরকার থেকে কঠোরতম বিধিনিষেধের কথা বলা হলেও শেষ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের দাবির মুখে সেটা আর রাখতে পারেনি।

গত শুক্রবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক আদেশে জানানো হয়, ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী সব শিল্প ও কলকারখানা চলমান বিধিনিষেধের আওতাবহির্ভূত করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের পর শ্রমিকেরা গ্রামের বাড়ি থেকে দুর্ভোগ নিয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন কলকারখানার অভিমুখে রওনা হন।

একপর্যায়ে রোববার দুপুর পর্যন্ত গণপরিবহন চালুর অনুমোদন দেয় সরকার। লঞ্চের সময় অবশ্য গতকাল সোমবার ভোর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল।

 

 

আবারো সব নৌযান বন্ধ
মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গত ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে সরকার। তবে রপ্তানিমুখী সব পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় কাজে যোগ দিতে শুক্রবার রাত থেকেই হাজার হাজার শ্রমিক ও সংশ্লিষ্টরা ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় যাত্রা শুরু করেন।

তাদের নিরাপদে কর্মস্থলে ফেরার সুযোগ দিতে সরকার শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয়। ভিড় থাকায় পরে রোববার ১২টায় লঞ্চ বন্ধ না করে চালু রাখার ঘোষণা দেয় সরকার।

 

 

 

৩৮ ঘণ্টা চালু থাকার পর সোমবার সকাল ১০টায় লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এখনো পর্যন্ত সরকারি যে ঘোষণা রয়েছে, তাতে ৫ আগস্ট পর্যন্ত সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে।

সোমবার রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ঘুরে দেখা যায়, ভোর ৫টা থেকে ৬টা পর্যন্ত কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের চাপ থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সে চাপ কমতে থাকে। ভোরে যাত্রীদের ভিড়ে পন্টুনে মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি। সেখানে মাস্ক ছাড়াই যাত্রীদের যাতায়াত করতে দেখা গেছে।

লঞ্চ টার্মিনালে হকাররা ঝালমুড়ি, আম, আপেল, খেজুরসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র নিয়ে একজনের কাছ থেকে আরেকজনের কাছে গিয়ে বিক্রি করছেন। তাদের কারও মুখে নেই মাস্ক। হাত পরিষ্কার না করেই খাচ্ছেন কেউ কেউ।

 

 

আলোচিত মডেল পিয়াসা মদ, ইয়াবাসহ আটক

ফলে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা হচ্ছে না কোথাও। তবে সব যাত্রী নিজ নিজ গন্তব্যে চলে যাওয়ায় সকাল ৭টার পরে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল একে বারে জনশূন্য হয়ে পড়ে।

টার্মিনালে সারি সারি লঞ্চ, কিন্তু কোনো যাত্রী নেই। নেই কোনো হাঁক ডাক৷ এরপর সকাল ১০টায় লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এমভি মোহনা-৭ লঞ্চের সুপারভাইজার মো. তিয়াস বলেন, তারা রাত সাড়ে ৪টায় সদরঘাট এসেছি। মাত্র জনা ৪০ যাত্রী নিয়ে এখন লঞ্চ ছেড়ে যাবে। কোনো যাত্রী নেই। আসার সময় হাজার দুই যাত্রী নিয়ে এসেছি। সবচেয়ে বেশি যাত্রী এসেছে বেতুয়া, ইলিশা থেকে। ১০টার পর থেকে আবার ৫ আগস্ট পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল বন্ধ। এখানে থেকে কি করব, তাই চলে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, সকাল থেকে মাত্র পাঁচ/ছয়টি লঞ্চ ছেড়ে গেছে। প্রতি লঞ্চেই এ রকম ২৫/৩০ জন করে যাত্রী নিয়ে গেছে।

ইলিশা থেকে ঢাকায় আসা রাকিব হাসান বলেন, গার্মেন্টসে চাকরি করি। ১ তারিখ থেকে খুলেছে, যেতে পারিনি। আজ যাব। অনেক কষ্টে ঢাকায় এসেছি। লঞ্চ না চললে আসতে পারতাম না। তখন হয়তো চাকরিটা থাকতো না। এজন্য সরকারকে ধন্যবাদ।

 

একই স্থান থেকে এসেছেন আরেক পোশাক শ্রমিক আয়শা আক্তার। তিনি জানান, অনেক কষ্টে লঞ্চে উঠেছেন। লঞ্চে পা ফেলার জায়গা ছিল না। কোনো রকমে এক কোণায় বসে এসেছেন। হঠাৎ করে গার্মেন্টস খোলায় এত ভিড়। আমাদের যদি আগে বলে দিতো, তাহলে ঢাকা ছেড়ে যেতাম না। আমাদের বলেছে ৫ তারিখের পড়ে খোলা হবে। মালিকরা শুধু আমাদের নিয়ে খেলা করে।

বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, দেড় দিন লঞ্চ চলার পর সোমবার সকাল ১০টা থেকে ফের বন্ধ হয়ে গেছে নৌযান। গত দেড় দিনে আমরা আশানুরূপ যাত্রী পাইনি। সরকার ধাপে ধাপে অনুমিত দেওয়ায় এ সুবিধা কেউ নিতে পারেনি। আমাদের যদি শুক্রবার দিন একবারে বলে দিতো যে রোববার সকাল পর্যন্ত লঞ্চ চলবে, তাহলে আমরা প্রচার করে দিতে পারতাম।

কিন্তু সেটা না হওয়ায় পাটুরিয়া-শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীদের দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে। আমরা আজ থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত সরকারের নির্দেশ মতো লঞ্চ বন্ধ রাখবো।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের ট্রাফিক বিভাগ জানায়, দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হলো নৌপথ। শনিবার রাত সাড়ে ১২টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন রুটে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে ছেড়ে গেছে মাত্র ১০টি লঞ্চ। এর মধ্যে পাঁচটি লঞ্চে কোনো যাত্রী ছিল না।

এসময়ে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে এসেছে প্রায় ৩৭টি লঞ্চ। দক্ষিণাঞ্চলে লঞ্চগুলো সাধারণত ভোর ৫ থেকে ৬টার মধ্যে চলে আসে।

 

 

অর্ধেক যাত্রী নিয়ে নৌযান চলাচল
এদিকে গত ১ জুলাই থেকে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে সরকার। এরপর মঙ্গলবার এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে কঠোর বিধি-নিষেধ শিথিল করায় ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে নৌযান চলাচল করলেও ২৩ জুলাই ৬টার পর আবার সব বন্ধ হয়ে যায়।

কিন্তু ৩০ জুলাই দেশের সব রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানা খোলায় প্রথমে ১৬ ঘণ্টা, পরে আরো ২২ ঘণ্টাসহ মোট ৩৮ ঘণ্টার জন্য লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয় সরকার। ৩৮ ঘণ্টা শেষে সোমবার সকাল ১০টা থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ নৌপথে সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে।

Loading...