তাপস–খোকনের বিরোধ, পেছনে ‘ক্ষমতার লড়াই’

দুজনের বিরোধের শুরু মেয়র পদে মনোনয়নকে ঘিরে। এরপর ‘টাকার হিসাব’ নিয়ে গত জানুয়ারিতে তাঁদের বিরোধ প্রকাশ্যে আসে। শুরু হয় কথার লড়াই, চলে অনুসারীদের পাল্টাপাল্টি মিছিল-মানববন্ধন। তাঁরা দুজন হলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস ও সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। দুজনের পুরোনো তিক্ততা আবার সামনে এল গতকাল মঙ্গলবার।

শুরুটা হয়েছিল গত জানুয়ারি মাসে। দলের নীতিনির্ধারকদের হস্তক্ষেপে মাঝখানে কয়েক মাস দুজনই চুপ ছিলেন। তবে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আবেদনের ভিত্তিতে আদালত গত রোববার সাঈদ খোকনের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ও পরিবারের আটটি ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ দিলে গতকাল রীতিমতো সংবাদ সম্মেলন করে তাপসের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়লেন সাঈদ খোকন। দুদকের তৎপরতার পেছনে তাপসের হাত রয়েছে বলেও মনে করছেন তিনি।

অবশ্য তাপস পাল্টা জবাব না দিয়ে বিষয়টি আদালত ও দুদকের বলে এড়িয়ে গেছেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগর কমিটির একাধিক নেতা বলছেন, বর্তমান ও সাবেক মেয়রের এই পাল্টাপাল্টি অবস্থান—আসলে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়া আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বেরই বহিঃপ্রকাশ। তাপস ও খোকনের এই বিরোধ অচিরেই শেষ হয়ে যাবে বলে মনে হচ্ছে না। কারণ, তাপসের কাছে মেয়র পদ হারানোর বিষয়টি সাঈদ খোকন এখনো মেনে নিতে পারছেন না। অন্যদিকে সাঈদ খোকনের মেয়র থাকাকালে নেওয়া নানা সিদ্ধান্তের দোষ-ত্রুটি খোঁজার কাজও চালিয়ে যাবেন তাপস।

সাঈদ খোকনের বাবা মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র। তিনি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন দীর্ঘ সময়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠজন ছিলেন তিনি। বাবার মৃত্যুর পর সাঈদ খোকন ঢাকা মহানগরের নেতৃত্ব ও সিটি করপোরেশনের মেয়র—দুটিরই উত্তরাধিকারী হবেন, এমন প্রত্যাশা করেছিলেন। কিন্তু মহানগর আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে তিনি গত বছর মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন হারান বঙ্গবন্ধুর ভাগনে শেখ ফজলুল হক মণির ছেলে শেখ ফজলে নূর তাপসের কাছে।

আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র বলছে, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী বাছাই নিয়ে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নানা নাটকীয়তা জন্ম দেয়। দলের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ থেকে সাঈদ খোকনকেই দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র পদে রাখার পক্ষে মত আসে। খোকনও মনোনয়ন চূড়ান্ত করার আগপর্যন্ত নিজের আশাবাদের কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু ডেঙ্গু মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা, দলীয় কোন্দলে যুক্ত হওয়া, সিটি করপোরেশনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ—সব মিলিয়ে মনোনয়ন পাননি তিনি। তাঁর পরিবর্তে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য তাপস মনোনয়ন পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। এরপর থেকেই খোকন ও তাপসের মধ্যে ঠান্ডা লড়াই শুরু হয়।

সাংসদ পদ ছেড়ে মেয়র নির্বাচিত হয়ে ফজলে নূর তাপস গত বছরের ডিসেম্বরে গুলিস্তান এলাকায় দুটি মার্কেটে নকশার বাইরে থাকা দোকান উচ্ছেদে গেলে দুজনের ঠান্ডা লড়াই প্রকাশ্য হয়। তখন মার্কেটের দোকানদারেরা বলেছিলেন, নকশাবহির্ভূত দোকান বৈধ করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে মেয়র থাকা অবস্থায় সাঈদ খোকন তাঁদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। প্রায় ৩৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও করেন এক ব্যবসায়ী। এই মামলার তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন।

এর পাল্টা হিসেবে উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের নিয়ে গত ৯ জানুয়ারি হাইকোর্ট এলাকার কদম ফোয়ারার সামনে মানববন্ধন করেন সাঈদ খোকন। সেখানে সাঈদ খোকন অভিযোগ করেন, তাপস দক্ষিণ সিটির শত শত কোটি টাকা তাঁর নিজ মালিকানাধীন মধুমতি ব্যাংকে স্থানান্তর করেছেন। তাপসের উদ্দেশে সেদিন তিনি বলেন, রাঘববোয়ালদের মুখে চুনোপুঁটির গল্প মানায় না। মেয়র পদে থাকার যোগ্যতা তাপস হারিয়েছেন বলেও তখন উল্লেখ করেছিলেন তিনি।

ওই ঘটনার পর ১১ জানুয়ারি খোকনের বক্তব্য মানহানিকর উল্লেখ করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন মেয়র তাপস। অবশ্য পরে তিনি আইনি ব্যবস্থা নেননি। কিন্তু এক আইনজীবী সাঈদ খোকনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলার আবেদন করেন। পরে অবশ্য ওই আবেদন খারিজ হয়ে যায়। এরপর গত জানুয়ারি মাসে সাবেক ও বর্তমান মেয়রের পক্ষে-বিপক্ষে পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ও মানববন্ধনও করেছেন তাঁদের অনুসারীরা। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকদের হস্তক্ষেপে দুজনই পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দেওয়া থেকে বিরত থাকেন। একপর্যায়ে সাঈদ খোকনকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য করা হয়।

তাপসের ওপর দোষ চাপালেন খোকন

ব্যাংক হিসাব জব্দে দুদকের পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাঈদ খোকন বলেন, ‘মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস নগর পরিচালনায় সীমাহীন ব্যর্থতা ঢাকতে বারবার আমার প্রতি হয়রানি ও বিদ্বেষমূলক আচরণ করে আসছেন। আমি মনে করি দুদকের এই কর্মকাণ্ড তাপসের প্ররোচনায় সংঘটিত হয়েছে।’

সংবাদ সম্মেলনে তাপসের প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বারবার ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং উচ্চ স্বরে কথা বলেন সাঈদ খোকন। সংবাদ সম্মেলনে তাঁর সঙ্গে আসা লোকজনও বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। একপর্যায়ে তাপসের উদ্দেশে তিনি বলেন, কত শতাংশ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তা এই শহরের মানুষ জানে। যাহোক, ক্ষমতায় আছেন, কাজ করেন। ঢাকার মরা মানুষের ওপরও ট্যাক্স বসিয়ে দিয়েছেন। কীভাবে মানুষের ভালোবাসা আশা করেন।

Loading...