৩ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিল বাংলাদেশের মেয়েরা

জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিল বাংলাদেশের মেয়েরা

৩ ম্যাচ এর ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। বুধবার বুলাওয়ের কুইন্স স্পোর্টস ক্লাবে জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা।

জিম্বাবুয়ের দেওয়া ৪৯ রানের টার্গেটে পৌঁছতে বাংলাদেশের লেগেছে মাত্র ১০ দশমিক ৪ বল। অর্থ্যাৎ ২৩৬ বল হাতে রেখেই  জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। রান তাড়া করতে নেমে দলীয় ২১ রানেই ফিরে যান দুই ওপেনার মুর্শিদা খাতুন ও শারমিন আখতার। তবে তৃতীয় উইকেটে ফারজানা হককে নিয়ে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন রুমানা আহমেদ। অবিচ্ছিন্ন ২৮ রানের জুটি গড়েন তারা। রুমানা ১৬ ও ফারজানা ১১ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে, টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২৩.২ ওভারে মাত্র ৪৮ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। জিম্বাবুয়ে শিবিরে শুরুতেই আঘাত হানেন পেসার জাহানারা আলম। টপ অর্ডার ধসিয়ে দেন মূলত তিনিই।

এরপর দুই স্পিনার সালমা খাতুন ও নাহিদা আক্তারও যোগ দেন উইকেট নেওয়ার মিছিলে। জাহানারা, সালমা ও নাহিদা প্রত্যেকেই  তিনটি করে উইকেট শিকার করেন। অপর উইকেটটি নেন ঋতু মনি।

জিম্বাবুয়ের মাত্র একজন ব্যাটার স্পর্শ করেছেন দুই অঙ্ক। সাত নম্বরে নামা প্রিসিয়াস মারাঙ্গে করেছেন সর্বোচ্চ ১৭ রান। এছাড়া বাকি সবাই ছিলে আসা যাওয়ায় ব্যস্ত। শেষ চার উইকেট তারা হারিয়েছে কোনো রান না তুলস।

 

 

আরো পড়ুনঃ

 

 

মুম্বাই ও দিল্লি গ্রুপ—দুই ভাগে বিভক্ত ভারত দল

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর এ সংস্করণে ভারতের নেতৃত্ব ছাড়বেন—ঘোষণাটা আগেই দিয়েই রেখেছিলেন বিরাট কোহলি। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে ভারতের বিদায়ের সঙ্গে শেষ হয়েছে সংক্ষিপ্ত এই সংস্করণে ভারতের কোহলি–যুগও। এরই মধ্যে ভারতে অনুষ্ঠেয় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের সিরিজের জন্য রোহিত শর্মাকে টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব দেওয়া হয়েছে।

একটি অধ্যায় শেষ হলেও কিছু কথা তো থেকেই যায়। কোহলির অধিনায়কত্ব ছাড়ার মধ্যে দলের মধ্যে বিভেদ দেখছেন পাকিস্তানের সাবেক লেগ স্পিনার মুশতাক আহমেদ।

বর্তমানে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের হাই পারফরম্যান্স স্কোয়াডের সঙ্গে যুক্ত থাকা মুশতাক স্থানীয় জিও নিউজ চ্যানেলকে বলেছেন, ‘বিরাট কোহলির টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছাড়া দেখিয়ে দিচ্ছে, সবকিছু ঠিকঠাক নেই।’

২০১৭ সালে ভারতের টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব পান কোহলি। তাঁর অধীনে ভারত ৫০ ম্যাচ খেলে ৩০ জয়ের বিপরীতে হেরেছে ১৬টিতে। ২টি ম্যাচ টাই হয়েছে আর ফল হয়নি ২টি ম্যাচের। ম্যাচ জয়ের পরিসংখ্যান বলছে, কোহলির অধীনেই টি-টোয়েন্টিতে শতাংশের হিসাবে সর্বোচ্চ জয় পেয়েছে (৬৪.৫৮ শতাংশ) ভারত।

এমন সফলতার পরও কোহলির অধিনায়কত্ব ছাড়া পেছনে দলের মধ্যে উপদল খুঁজে পেয়েছেন মুশতাক আহমেদ, ‘যখন একজন সফল অধিনায়ক অধিনায়কত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেন, এটা বুঝিয়ে দেয়, ড্রেসিংরুমে সবকিছু ঠিক নেই। আমি এই মুহূর্তে ভারতীয় ড্রেসিংরুমে দুটি গ্রুপ দেখতে পাচ্ছি—মুম্বাই ও দিল্লি গ্রুপ।’

অধিনায়কত্ব তো ছেড়েছেনই, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিও ছাড়ার ঘোষণা দিতে পারেন বলে মনে করেন মুশতাক আহমেদ, ‘আমার মনে হয় ভারতের টি-টোয়েন্টি দল থেকে শিগগিরই অবসরের ঘোষণা দেবে কোহলি; যদিও ভারতীয় প্রিমিয়ার লিগে খেলা চালিয়ে যাবে। আমার মনে হয় এই সংস্করণে তার যা কিছু দেওয়ার, তা সে দিয়ে দিয়েছে।’

বিশ্বকাপে ভারতের ব্যর্থতার কারণ হিসেবে অনেকেই আইপিএলকে দায়ী করেছেন। টানা খেলে যাওয়ায় খেলোয়াড়দের জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকতে হচ্ছে। ভারতের কোচ রবি শাস্ত্রী নিজেও দলের ব্যর্থতার কারণ হিসেবে দীর্ঘ সময় জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকার কারণে খেলোয়াড়দের মধ্যে তৈরি হওয়া মানসিক অবসাদকে দায়ী করেছেন।

এমনটা মনে করেন মুশতাক আহমেদও, ‘আমি মনে করি, বিশ্বকাপে ভারতের খারাপ করার কারণ আইপিএল। আমার মনে হয়, বিশ্বকাপের আগে লম্বা সময় জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকার জন্য খেলোয়াড়দের মধ্যে ক্লান্তি চলে এসেছিল।’

প্রেমের সম্পর্কে সুমি বেগমকে বিয়ে করেন মজিবর রহমান। স্ত্রীকে প্রচণ্ড ভালোবাসেন তিনি। সুখে-শান্তিতে কেটে যাচ্ছিল তাদের সংসার। এর মধ্যে তাদের সুখের সংসারে আগুন জ্বালালেন সুমির মা লিলি বেগম। পেশায় ইজিবাইক চালক। একমাত্র বৃদ্ধা মাকে নিয়ে বসবাস করেন নরসিংদী শহরের নাগরিয়াকান্দি এলাকায়। বাবা জয়নাল গাজী মারা গেছেন প্রায় ২০ বছর আগে। ইজিবাইক চালিয়ে সংসার চালান তিনি।

কয়েক বছর আগে রায়পুরা উপজেলার মরজাল কামারটকে এলাকার নজরুল ইসলামের বড় মেয়ে সুমি বেগমের সঙ্গে পরিচয় ও প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে তার। পরে তাদের বিয়ে হয়। মজিবর তার নিজ বাড়িতেই স্ত্রী ও একমাত্র বৃদ্ধা মাকে নিয়ে থাকেন।

প্রায় দেড় মাস আগে ইজিবাইক চালিয়ে বাড়ি ফিরে মজিবর দেখেন তার স্ত্রী নেই। শাশুড়ি ফুসলিয়ে সুমিকে তার স্বামীর বাড়ি থেকে নিয়ে আসেন। পরদিন শ্বশুরবাড়ি গিয়ে স্ত্রীকে আনতে চাইলে বাধা দেন শাশুড়ি লিলি বেগম। এ সময় মজিবর জানতে পারেন— পরিবারের বড় হওয়ায় সুমিকে শিবপুর উপজেলার বিসিক আমতলার একটি গার্মেন্টে চাকরি দিয়েছেন তার মা।

এদিকে স্ত্রী না আসায় মজিবর একপ্রকার পাগলপ্রায় হয়ে পড়েছেন। তিনি স্ত্রীকে ফিরে পেতে নরসিংদী শহর ও সুমির সম্ভাব্য যাতায়াত পথসহ বিভিন্ন স্থানে বেশ কিছু বিলবোর্ড টাঙিয়েছেন। লোকজন বিলবোর্ড দেখে তাকে যেন সবাই সুমির খবর দেয়। এছাড়া সুমির চোখে পড়লে সেও যেন তার কাছে চলে আসে। এজন্যই অভিনব এই বিলবোর্ড টাঙিয়েছেন তিনি।

ভালোবাসার টানে সুমি চলে আসবে- এমন আশাবাদ জানিয়ে মজিবর জানান, দীর্ঘ দেড় বছরের প্রেম, তারপর বিয়ে, সুমিকে অনেক ভালোবাসেন তিনি। বিয়ের দেড় বছরে একবারও ঝগড়া হয়নি। হয়নি কোনো গালমন্দও। তাকে না পেলে বাঁচবেন না। সুমিকে ফিরে পেতে ২৫টি বিলবোর্ড টাঙিয়েছেন বলেও জানান তিনি। থানায় কোনো অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মজিবর জানান, সুমি তার বাবার বাড়ি আছে বলে অভিযোগ করার প্রয়োজন মনে হয়নি।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আসলে কথামালার চাতুরী দিয়ে জনগণের মন জয় করা যায় না, এ কথা বিএনপি বুঝেও বুঝতে চায় না।

তিনি বৃহস্পতিবার সকালে সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংয়ে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যের জবাবে এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের মানুষ দেখতে চায় পলাতক তারেক জিয়া আগে দেশে ফিরে আসুক, তারপর দেখা যাবে বিএনপি’র মরা গাঙে ঢেউ আসে কিনা।

তারেক জিয়া দেশে আসবে কোন বছর- এমন প্রশ্ন রেখে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এই বছর না ওই বছর, দেখতে দেখতে ১৩ বছর চলে গেলেও তারেক জিয়া দেশে আসার সৎ সাহস দেখাতে পারছেন না।

গত কয়েক বছর ধরে গণঅভ্যুত্থান, মুক্ত খালেদার চেয়ে বন্দি খালেদা অনেক শক্তিশালী, নির্বাচনে বিএনপির ভূমিধস বিজয়ের গল্প, আওয়ামী লীগের ৩০ আসন না পাওয়ার গল্পসহ বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, এসব বক্তব্যে কী হয়েছে, দেশের জনগণ তা দেখেছে।

পরে সেতুমন্ত্রী টাঙ্গাইলের ভাতকুড়া করোটিয়া-বাসাইল- সখিপুর সড়কের ওপর প্রায় সাড়ে ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬৯ মিটার নাঙ্গালিয়া সেতুর উদ্বোধন করেন।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভে টানা তিন ম্যাচ হেরে সেমিফাইনালের দৌঁড় থেকে অনেকটাই ছিটকে পড়েছে বাংলাদেশ। তবে সেমিফাইনালের স্বপ্ন একেবারেই গুড়িয়ে যায়নি মাহমুদউল্লাহদের। সেজন্য বেশ কিছু অসম্ভবকে সম্ভব করতে হবে। তাকিয়ে থাকতে হবে গ্রুপের অন্য ম্যাচগুলোর জয়-পরাজয়ের দিকে।

আপাতত হারের বৃত্ত ভাঙার চেষ্টায় টাইগাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আজকের ম্যাচে জিতে হারের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে প্রত্যয়ী মাহমুদউল্লাহরা। তবে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতি দলকে ভোগাবে। ইনজুরির কারণে দলের সঙ্গে নেই অভিজ্ঞ ওপেনার তামিম ইকবাল। সেই দলে যোগ দিয়েছেন অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনও।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি জেতার সুখস্মৃতি নেই বাংলাদেশের। এখন পর্যন্ত আফ্রিকার দেশটির বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ছয়টি ম্যাচ খেলে সবকটিতেই হেরেছে বাংলাদেশ। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে ২০১৭ সালের পর এই প্রথমবার মুখোমুখি হবে টাইগাররা। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

সুপার টুয়েলভে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছে ৫ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ। এরপর ইংল্যান্ডের কাছে হারে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জিততে জিততে হেরে যায় বাংলাদেশ। শেষ বলে ৪ রান দরকার ছিল। ক্রিজে ছিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি দলকে জয়ের বন্দরে পৌছে দিতে ব্যর্থ হন। অঙ্কের হিসেবে বাংলাদেশের শেষ চারে খেলার সুযোগ থাকলেও অনেক যদি-কিন্তুর ওপর নির্ভর করছে তা।

টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত তিন ম্যাচে দুটি করে জয় পেয়ে দারুণ ফর্মে রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আবার ইংল্যান্ডের কাছে পরাজিত হয়েছে অস্ট্রেলিয়া। গ্রুপ-১-এ পারফরম্যান্সের বিচারে ইংল্যান্ড দারুণ দল। এমন অবস্থায় গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে সেমিফাইনালে যাওয়ার দৌঁড়ে টিকে থাকতে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের ম্যাচগুলোতে জিততে চাইবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশকে সেমিতে খেলতে হলে আজকের ম্যাচসহ অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে হবে। বাংলাদেশ দলকে কেবল দ.আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিতলেই হবে না, অন্য দলগুলোর জয়-পরাজয়ের দিকেও তাকিয়ে থাকতে হবে। জটিল অর্থে সম্ভাবনা থাকলেও এই সমীকরণ মিলে যাওয়া খুবই কঠিন। সেমিফাইনালে যাওয়ার সামান্য সুযোগও কাজে লাগাতে চান অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স সন্তোষজনক নয়। এখন পর্যন্ত ১১৮ ম্যাচ খেলে ৪৩টি জিতেছে। ৭৩ ম্যাচে হার ও দুটি পরিত্যক্ত হয়েছে। আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পারফরমেন্স আরও অনুজ্জ্বল। এখন পর্যন্ত ৩০টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। মাত্র সাতটিতে জিতেছে তারা। আজকের ম্যাচে জিতে হারের বৃত্ত থেকে মাহমুদউল্লাহরা বের হতে পারবেন কিনা সেই প্রশ্নের উত্তর জানতে আরও কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে ক্রিকেটভক্তদের।

আগামী বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জনের জন্য মাহমুদউল্লাহদের দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিততেই হবে। তাহলে অস্ট্রেলিয়াতে অনুষ্ঠেয় আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার সুযোগ করে নিতে পারবে তারা। আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ৮ দল অস্ট্রেলিয়াতে সরাসরি বিশ্বকাপে অংশ নেবে।

এই মুহূর্তে র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান নয় নম্বরে। বাংলাদেশের সমান ২৩৪ রেটিং পয়েন্ট হলেও ভগ্নাংশের ব্যবধানে এগিয়ে ৮ নম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শ্রীলঙ্কা ২৩০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ১০ নম্বরে আছে। ২৩৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে সাতে আফগানিস্তান। দুই ম্যাচের দুটি ম্যাচ জিতলে আগামী টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের সরাসরি খেলার ভালো সম্ভাবনা থাকবে। একটি ম্যাচ জিতলেও সুযোগ থাকবে। সেক্ষেত্রে অন্য ম্যাচগুলির ফলাফলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে। ফলে সেমিফাইনাল না হোক, অন্তত সরাসরি বিশ্বকাপ খেলার যোগত্য অর্জনের জন্য হলেও বাংলাদেশের ম্যাচ জিততে হবে।

টানা হারের বৃত্তে আটকে থাকা বাংলাদেশ দলও জয়ের জন্য মরিয়া। সোমবার আইসিসি ক্রিকেট একাডেমি মাঠে নির্ভার হয়ে মুশফিক-মাহমুদউল্লাহরা অনুশীলন করেছেন। যা সর্বশেষ ম্যাচগুলোর আগে-পরে দেখা যায়নি। হয়তো এই চনমনে ভাবই বাংলাদেশ দলকে জয় পেতে উজ্জীবিত করবে।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বায়োপসি রিপোর্ট পাওয়া গেছে। সেই অনুযায়ী চিকিৎসকেরা তাঁর চিকিৎসা দিচ্ছেন। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছেন তিনি। গত ২৫ অক্টোবর খালেদা জিয়ার শরীরে অস্ত্রোপচার করা হয়। ওই দিন বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত চিকিৎসক এ জেড এম জাহিদ হোসেন গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ‘ওনার (খালেদা জিয়া) শরীরের এক জায়গায় ছোট একটা লাম্প আছে। এই লাম্পের ন্যাচার অব অরিজিন জানতে হলে বায়োপসি করা প্রয়োজন। সে জন্য ওনার বায়োপসির জন্য অপারেশন করা হয়েছে।

খালেদা জিয়া হাসপাতালে ভর্তির পর তাঁর দেখাশোনার জন্য যুক্তরাজ্য থেকে দেশে এসেছেন প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী সিঁথি রহমান। আজ দুপুরে বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, খালেদা জিয়ার অবস্থা স্থিতিশীল। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বিএনপি চেয়ারপারসন চলতি বছরের এপ্রিলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। করোনা–পরবর্তী জটিলতা নিয়ে তিনি ৬ মে থেকে প্রায় এক মাস এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি ছিলেন।

আফগানিস্তানের নানগারহার প্রদেশে একসঙ্গে চার জুটির বিয়ে হচ্ছিল। বিয়ে উপলক্ষে সেখানে বাজছিল গান। সেই গান বন্ধ করতে বন্দুকধারীরা হামলা করে। হামলায় অন্তত দুজন নিহত হন। আহত হন ১০ জন। স্থানীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে আজ রোববার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়। হামলাকারী বন্দুকধারীরা নিজেদের তালেবানের সদস্য বলে পরিচয় দিয়েছে। তবে হামলাকারীদের এই দাবি অস্বীকার করেছেন তালেবানের এক মুখপাত্র।

গত শুক্রবার রাতে এই যৌথ বিয়ের অনুষ্ঠান হচ্ছিল। সেদিন রাতে বিয়ের এ অনুষ্ঠানে হামলাকারী তিন বন্দুকধারীর মধ্যে দুজনকে গ্রেপ্তার করার কথা জানিয়েছেন তালেবানের এক মুখপাত্র। তাঁর ভাষ্য, বন্দুকধারীরা তালেবানের হয়ে বিয়েবাড়িতে হামলা চালায়নি। এক প্রত্যক্ষদর্শী বিবিসিকে বলেন, শুক্রবার রাতে নানগারহার প্রদেশের সুরখ রোড জেলায় একসঙ্গে চার জুটির বিয়ে হচ্ছিল। রাতে হঠাৎ বন্দুকধারীরা বিয়েবাড়িতে হামলা করে। এতে হতাহত হওয়ার এ ঘটনা ঘটে।

একই প্রত্যক্ষদর্শীর ভাষ্য, নারীদের জন্য সংরক্ষিত একটি স্থানে রেকর্ড করা গান বাজানোর জন্য স্থানীয় এক তালেবান নেতার কাছ থেকে অনুমতি নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মধ্যরাতে হঠাৎ একদল বন্দুকধারী জোর করে বিয়েবাড়িতে ঢুকে পড়ে। তারা লাউডস্পিকার ভাঙার চেষ্টা করে। অতিথিরা বাধা দিলে বন্দুকধারীরা গুলি চালায়। তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, বিয়েবাড়িতে হামলার ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। গত আগস্টে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। পরের মাসে তারা সরকার গঠনের ঘোষণা দেয়।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানের ক্ষমতায় ছিল তালেবান। তখন তারা দেশটিতে গান নিষিদ্ধ করেছিল। তবে এবার তারা ক্ষমতায় এসে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো ডিক্রি জারি করেনি। আফগানিস্তানে তালেবানের প্রতিপক্ষ জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। নানগারহার প্রদেশে আইএস সক্রিয় রয়েছে। আগে এ প্রদেশে একাধিক হামলার দায় নিয়েছে আইএস।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মনে করেন, তারা পরমতসহিষ্ণু বলেই বিএনপি এখনো রাজনীতি করতে পারছে। তিনি বলেন, দেশে গণতন্ত্র আছে বলেই সরকারের সমালোচনা করতে পারছে বিএনপি। তারা বক্তৃতা, বিবৃতি, মানববন্ধন, আলোচনা, টকশোসহ নানা উপায়ে সমালোচনা করছে। এ জন্য সরকার তো তাদের কোনো শাস্তি দিচ্ছে না।
বিএনপি আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে এখন সাম্প্রদায়িক শক্তিকে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে উসকানি দিচ্ছে বলেও দাবি করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বহু বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে সঠিক পথে এনেছেন। অন্যদিকে বিএনপি তাদের অগণতান্ত্রিক আচরণ এবং ষড়যন্ত্রের রাজনীতি দিয়ে গণতন্ত্র বিকাশে পদে পদে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে।
আজ শনিবার নিজের সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

সরকারের পায়ের নিচে নাকি মাটি নেই —বিএনপি নেতারা এক যুগ ধরে এমন কথা বলে আসছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রকৃতপক্ষে সরকার নয়, বিএনপির পায়ের নিচেই মাটি নেই। তাদের পায়ের নিচে মাটি থাকলে তো তারা রাজপথে নামত, নির্বাচনেও থাকত। তিনি বলেন, নেতিবাচক ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির জন্য বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই। তাই তারা শিকড় থেকে বিচ্ছিন্ন এবং নির্বাচনবিমুখ। ১৫ ফেব্রুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপিই গণতন্ত্রকে বঙ্গোপসাগরে ফেলতে চেয়েছিল উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সোয়া এক কোটি ভুয়া ভোটার সৃষ্টি করে বিএনপিই গণতন্ত্রকে ধূলিসাৎ করতে চেয়েছিল। এমনকি বিএনপি সংবিধান থেকে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের মূলোৎপাটনও করেছে।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নামে ১১ মামলার শুনানির জন্য আগামী ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ আদেশ দেন।

 

খালেদা জিয়ার নামে থাকা ১১ মামলার মধ্যে রাজধানীর দারুস সালাম থানায় ৮টি, যাত্রাবাড়ী থানায় ২টি ও রাষ্ট্রদ্রোহের ১টি মামলা রয়েছে।

 

ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে সরকারি কৌঁসুলি তাপস কুমার পাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণের কারণে আদালতের স্বাভাবিক বিচারকাজ স্থবির হয়ে পড়েছে। তবে এখন আদালতের কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়েছে। আদালত খালেদা জিয়ার নামে করা ১১ মামলার শুনানির জন্য ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন।

 

বর্তমানে এসব মামলা ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন। মামলাগুলো অভিযোগ গঠনের শুনানির পর্যায়ে রয়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

 

 

গতকাল সোমবার সকাল থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত সময়ে এসব ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিএমপির গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগ এ তথ্য জানিয়েছেন।

 

 

 

পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তার হওয়া আসামিদের কাছ থেকে ৪৮৮ গ্রাম হেরোইন, ৯ কেজি গাঁজা, ২ হাজার ২২৫টি ইয়াবা বড়ি ও ১ গ্রাম আইস উদ্ধার করা হয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে এসব আসামির বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ৪৩টি মামলা হয়েছে।

 

 

পুলিশ বলেছ, নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাদকসহ আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়।

 

চিত্রনায়িকা পরীমনির সঙ্গে যা হচ্ছে, তা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেছেন তাঁর নানা শামসুল হক গাজী। সাবেক এই স্কুলশিক্ষক বলেন, তাঁর নাতনি ষড়যন্ত্রের শিকার। এটা গোটা দেশ এখন জানে।

 

৪ আগস্ট পরীমনির বনানীর বাসা কয়েক ঘণ্টা ঘিরে রেখে অভিযান চালায় র‌্যাব। ঘেরাওয়ের মধ্যে পরীমনি ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, দিনদুপুরে কে বা কারা তাঁর বাসায় আক্রমণ চালাচ্ছে। তিনি এ সময় পুলিশের সহায়তা চান। অন্যদিকে র‌্যাব দাবি করে, এই অভিনেত্রীর বাসায় ‘অভিযান’ চালিয়ে তাঁরা বিপুল পরিমাণ মদ ছাড়াও এলএসডি ও আইসের মতো মাদক উদ্ধার করেছেন। পরে র‍্যাব বাদী হয়ে বনানী থানায় মামলাও করে। সেই মামলা এখন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) তদন্ত করছে।

 

 

এর আগে গত ১৩ জুন পরীমনি ঢাকা বোট ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নাসির ইউ মাহমুদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলা করেন। এরপর থেকেই পরীমনি ছিলেন আলোচনায়।

র‌্যাবের করা মামলায় তৃতীয় দফায় রিমান্ড শেষে গতকাল পরীমনিকে আদালতে হাজির করে সিআইডি। পরে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। রোববার দিনভর চেষ্টার পরও পরীমনির বিরুদ্ধে করা মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে সিআইডি কর্মকর্তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এই প্রেক্ষাপটে কথা বলা হয় পরীমনির নানা শামসুল হক গাজীর সঙ্গে।

 

 

শামসুল হক গাজী বলেন, ‘দেশের আশি ভাগ মানুষ জানে পরীমনিকে হয়রানি করছে। এটা তো আমার কথা না। সবাই তাই বলছে। সবারই একই কথা। অযথা হয়রানি। ষড়যন্ত্র করে তাকে হেনস্তা করছে এটা সবাই বলছে।’ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে তিনি বলেছেন, তারা তাদের মতো কাজ করে যাচ্ছে। আইনজীবীর সঙ্গে পরীমনিকে কথা বলতে দেওয়া হয়নি। এতে তাঁর অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে।

 

 

এত দিনে মাত্র একবার নাতনির সঙ্গে কথা বলতে পেরেছেন বলে জানান শামসুল হক গাজী। প্রথম যেদিন পরীমনিকে আদালতে হাজির করা হয়, সেদিন তিনিও আদালতে উপস্থিত হয়েছিলেন। পরীমনি তাঁকে বলেছেন, নানুভাই তুমি কোনো দুশ্চিন্তা কোরো না। ঠিকমতো খাওয়াদাওয়া করো। নিজের বিষয়ে পরীমনি কিছুই বলেননি।

 

পরীমনির কষ্ট হলেও নানার কাছে লুকাবেন, কারণ তিনি সব সময় নানার সুস্থতার কথা চিন্তা করেন—এমন ধারণা শামসুল হক গাজীর। কারাগার থেকে ফোনে কথা বলার সুযোগ আছে এ বিষয়টি শামসুল হক গাজীর জানা। তবে এখনো পর্যন্ত নাতনির ফোন আসেনি। তিনি আছেন অপেক্ষায়।

 

আড়াই বছর বয়সে মা হারানোর পর থেকে পরীমনিকে কোলেপিঠে করে বড় করেছেন এই নানা। ২০১৭ সালের ১৮ জুন বাবা দিবসে পরীমনি ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছিলেন। ওই পোস্টে তিনি লেখেন, শামসুল হক গাজী তাঁকে জন্ম দেননি, তবে তিনিই তাঁর বাবা। পরীমনি লেখেন, ‘আজ সত্যি যদি বলি আমার বাবা হলেন আমার নানুভাই শামসুল হক গাজী। ওহ একটা মজার বিষয় বলি, অনেকেরই আমার নাম নিয়ে কৌতূহল দেখেছি। আসল নাম, ডাকনাম, কে রেখেছে ইত্যাদি ইত্যাদি…আমার সার্টিফিকেট নাম শামসুন্নাহার স্মৃতি। শামসুন মানে সূর্যের আলো। নানুভাইয়ের নামের সাথে মিল করে এই নাম।’

শামসুল হক গাজী গতকাল  বলেন, ‘আমার কাছে একদিকে পৃথিবী আরেক দিকে পরী। ও–ই আমার পৃথিবী।’ তিনি বলেন, তাঁর নাতনি উপার্জন করেছেন, কিন্তু সবটাই ব্যয় করেছেন ‘জনহিতকর কাজে’। প্রতিবছর এফডিসিতে দুস্থ শিল্পীদের জন্য কোরবানি দেন পরীমনি। অনাথাশ্রমে জন্মদিন পালন করেছেন। নিজের ঘরবাড়ি নেই। তিনি থাকতেন ভাড়া বাসায়। আর কিছুদিন পরপর নানাকে নিজের কাছে নিয়ে আসতেন। এবার নানা এসেছিলেন ২১ রমজানে। পরীমনি ঝামেলায় পড়ায় আর পিরোজপুরের বাড়িতে ফিরতে পারেননি। পরীমনি নেই, তাই ঘর নীরব। তিনি তাঁর নাতনির ঘরে ফেরার অপেক্ষায় আছেন। এই মুহূর্তে প্রার্থনা করা ছাড়া তাঁর আর কিছুই করার নেই।

 

শাকিব খান প্রায়ই বলেন, নায়করাজ রাজ্জাক তাঁর একজন অভিভাবক।

 

শাকিবের অভিনয় ও ব্যক্তিজীবনের যেকোনো দুঃসময়ে তিনি ছায়ার মতো পাশে ছিলেন। সাহস ও প্রেরণা জুগিয়েছেন। শাকিব খানের সেই অভিভাবক, বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের অভিভাবক নায়করাজ রাজ্জাকের মৃত্যুর আজ চার বছর অতিক্রান্ত হচ্ছে। দিনটিতে তাঁকে স্মরণ করে ফেসবুকে একটি স্মৃতিকথা লিখেছেন শাকিব খান।

শাকিব খান লিখেছেন, ‘নায়করাজ রাজ্জাক ছিলেন আমার মাথার ওপর সুবিশাল আকাশ। ছায়ায় ও মায়ায় আগলে রেখে ভালোবাসা ও পরামর্শ দিতেন। অনেক দিন দেখা না হলেও কীভাবে যেন বুঝে যেতেন কিসের মধ্যে আছি, এটাই বুঝি আত্মার সম্পর্ক!

বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের সেরা নায়ক হিসেবে ধরা হয় নায়করাজ রাজ্জাককে। দেশের চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি এই অভিনেতা ২০১৭ সালের ২১ আগস্ট মারা যান। চার বছর আগের এদিন বিকেল পাঁচটার দিকে অসুস্থ বোধ করলে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেদিন গুলশানের একটি হাসপাতালে সন্ধ্যায় তিনি মারা যান।

রাজ্জাকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে শেষ হয় বাংলা চলচ্চিত্রের একটি বর্ণাঢ্য অধ্যায়। গত শতাব্দীর পঞ্চাশের দশক থেকে যাঁদের হাত ধরে আমাদের দেশে শিশু চলচ্চিত্র দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল, তাঁদের মধ্যে উজ্জ্বল এক নাম রাজ্জাক। দীর্ঘ অভিনয়জীবনের অভিজ্ঞতা দিয়ে তিনি জয় করেছিলেন এ দেশের চলচ্চিত্রপ্রেমী মানুষের হৃদয়।

 

 

 

শাকিব খান লিখেছেন, ‘দেশের চলচ্চিত্রশিল্পের কয়েক প্রজন্মের কাছে তিনি আইকনিক অধ্যায়। একটা সময় আমাদের দেশে ভিনদেশি সিনেমার প্রভাব ছিল। তখন যাঁর আবির্ভাব হয়, তিনি নায়করাজ রাজ্জাক। তিনি তাঁর অভিনয় দিয়ে দর্শকদের বাংলা সিনেমামুখী করেছিলেন। নিজেই তৈরি করেছিলেন এক স্বতন্ত্র অবস্থান। অভিনয়দক্ষতায় সব ধরনের মানুষের কাছে নায়কদের শিরোমণি হয়ে উঠেছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক। তাই কোটি বাঙালির হৃদয়ে আজও তিনি বেঁচে আছেন। যত দিন বাংলাদেশ থাকবে, বাংলাদেশের সিনেমা থাকবে, তত দিনই তিনি আমাদের সবার হৃদয়ে অহংকার হয়ে থাকবেন।

 

নায়করাজ রাজ্জাকের জন্ম ১৯৪২ সালের ২৩ জানুয়ারি। অবিভক্ত ভারতের কলকাতার কালীগঞ্জের নাকতলায় তিনি জন্মেছিলেন। তাঁর আট বছর বয়সে বাবা আকবর হোসেন ও মা নিসারুন্নেসা দুজনই মারা যান। তিন ভাই, তিন বোনের সংসারে বড়রা রাজ্জাককে বুঝতেই দেননি মা–বাবার শূন্যতা। ছোটবেলায় পড়তেন খানপুর হাইস্কুলে। এ কথা এখন অনেকেই জানেন যে কৈশোরে রাজ্জাকের ইচ্ছা ছিল ফুটবলার হওয়ার। গোলরক্ষক হিসেবে খেলতেন ভালো। বিভিন্ন পাড়ায় ভাড়া করেও নিয়ে যাওয়া হতো তাঁকে।

রাজ্জাক যে পাড়ায় থাকতেন, সে পাড়ায়ই থাকতেন ছবি বিশ্বাস (‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’, ‘জলসাঘর’সহ অসংখ্য বাংলা ছবির শক্তিমান অভিনেতা), সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের মতো অভিনয়শিল্পীরা। ছবি বিশ্বাস বিপুল উৎসাহ নিয়ে আবৃত্তি শেখাতেন পাড়ার শিশু-কিশোরদের। রাজ্জাকও তাঁর কাছে আবৃত্তি শিখেছেন।

মেসিকে পেয়ে উচ্ছ্বসিত পিএসজি তাড়াহুড়া করতে চায় না তাঁকে নিয়ে। আগস্টের একদম শেষ ম্যাচে তাঁকে মাঠে নামানোর পরিকল্পনা কোচ মরিসিও পচেত্তিনো। লিগে প্রথম ম্যাচে তো সুযোগ ছিলই না, পরের দুটি ম্যাচেও মেসিকে স্কোয়াডে রাখেননি কোচ। গতকাল ব্রেস্তের বিপক্ষে ৪-২ ব্যবধানে জেতা ম্যাচেও স্কোয়াডে ছিলেন না মেসি। ছিলেন না নেইমারও। আর এ সুযোগটাই নিয়েছেন দুজন। কাল দুই তারকাকেই বার্সেলোনা বিমানবন্দরে দেখা গেছে।

 

দুই তারকা অবশ্য একসঙ্গে ভ্রমণ করেননি। প্রাইভেট জেটে উড়াল দেওয়া দুজন নেমেছেন কিছুটা সময়ের ব্যবধানে। যদিও দুজনের গন্তব্য ছিল এক।

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.