Ultimate magazine theme for WordPress.

রিফাত হত্যা: চতুর্থ দফায় রিমান্ডে রাব্বি-সাইমুন

বরগুনায় আলোচিত স্ত্রীর সামনে স্বামী রিফাত শরীফ হত্যার মামলায় গ্রেফতারকৃত ছয় নম্বর আসামি রাব্বি আকনের সাতদিনের এবং মামলার সন্দেহভাজন অভিযুক্ত সাইমুনের চতুর্থ দফায় তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকেলে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বরগুনা সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবির বলেন, আদালতে হাজির করে রাব্বি আকনের ১০ দিনের এবং সাইমুনের পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। পরে শুনানি শেষে আদালত রাব্বি আকনের সাতদিনের এবং সাইমুনের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বরগুনার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন জানান, আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। এছাড়া এ মামলার এজহারভুক্ত ছয়জন এবং সন্দেহভাজন সাতজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর আগে অভিযুক্ত রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. অলিউল্লাহ অলি, তানভীর, চন্দন, মো. হাসান, মো. সাগর ও নাজমুল হাসান একই আদালতে রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

এ মামলার দ্বিতীয় আসামি রিফাত ফরাজীর সাতদিনের রিমান্ড শেষে ফের পুলিশের দায়ের করা অস্ত্র মামলায় সাতদিনের রিমান্ডে রয়েছেন রিফাত ফরাজী। এছাড়া এ মামলার ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয় ও সন্দেহভাজন অভিযুক্ত আরিয়ান শ্রাবণ পাঁচদিনের এবং রাতুল সিকদার তিনদিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্য দিবালোকে রাম দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা আক্তার মিন্নি হামলাকারীদের সঙ্গে লড়াই করেও তাদের দমাতে পারেননি। একাধারে রিফাতকে কুপিয়ে বীরদর্পে অস্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ত্যাগ করে হামলাকারীরা। গুরুতর আহত রিফাতকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে নিহতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলো—সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড (২৫), মো. রিফাত ফরাজী (২৩), রিফাত ফরাজীর ভাই মো. রিশান ফরাজী (২০), চন্দন (২১), মো. মুসা, মো. রাব্বি আকন (১৯), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রায়হান (১৯), মো. হাসান (১৯), রিফাত (২০), অলি (২২) ও টিকটক হৃদয় (২১)। বাকি পাঁচ থেকে ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।

এর মধ্যে সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড গত মঙ্গলবার (২ জুলাই) ভোরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.