Ultimate magazine theme for WordPress.

যুবলীগ সভাপতিকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন ওসি

বোনের সঙ্গে প্রেম সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে নওগাঁয় ইমরান হোসেন নামে এক ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতিকে পিটিয়েছেন জেলার নিয়ামতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ। আহত অবস্থায় ইমরান হোসেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন।

গেল রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে নিয়ামতপুর থানায় ওসির কক্ষে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এরপর রাত ৯টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জয়া মারিয়া পেরেরা বৈঠক করে বিষয়টি সমঝোতা করে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে ওসির এমন কর্মকাণ্ডে স্থানীয়দের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে।

জানা গেছে, আহত ইমরান হোসেন উপজেলার শ্রীমন্তপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড (হরিপুর গ্রাম) যুবলীগের সভাপতি।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ইমরানের চাচাতো বোন ফোনালাপের মাধ্যমে জেলার মহাদেবপুর উপজেলার এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। রবিবার দুপুরে ওই যুবক প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে হরিপুর গ্রামে আসে। চাচাতো বোনকে ওই যুবকের সঙ্গে কথা বলতে দেখে ইমরান হোসেনের পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়।

পরিবারের একাংশ ওই যুবকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করতে চাইলে ইমরান স্থানীয়ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চান। অন্যদিকে ওসি আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিয়ে থানায় অভিযোগ করার চাপ প্রয়োগ করলে তাতে বাধা দেন ইমরান। এর পরই ওসি ইমরানকে ডেকে নিয়ে চরথাপ্পর ও কিলঘুষি মারেন বলে অভিযোগ উঠে।

ইউএনও জয়া মারিয়া বলেন, ‘বিষয়টি তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। সাধারণ একটি বিষয়। সামান্য ভুল বোঝাবুঝি। উভয়পক্ষের মধ্যে সমঝোতা হয়ে গেছে।’

এ নিয়ে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোন রিসিভ করেননি ওসি আবুল কালাম আজাদ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.