Ultimate magazine theme for WordPress.

বিএসএফের অনুপ্রবেশ, সীমান্তে সতর্কাবস্থায় বিজিবি

মাঝে মধ্যেই বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে পরে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ’র সদস্যরা। তাদের অনুপ্রবেশ ঢেকাতে এবার রাজশাহী সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করেছে বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বিজিবি। রাজশাহীর পদ্মা নদীতে অনুপ্রবেশ করে ৫ জেলেকে বিএসএফের অপহরণ ঘটনার পর রাজশাহী সীমান্তে বাড়ানো হয় বিজিবির টহল। বিশেষ করে সোনাইকান্দি বিওপির অধীনে খোলাবোনা পয়েন্টে পদ্মার ওপারে টহল বাড়িয়েছে বিজিবি সদস্যরা।

বৃহস্পতিবার (ফেব্রুয়ারি) বিজিবির উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা খোলাবোনা ও সোনাইকান্দি সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এ সময় বিজিবির ১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ সীমান্তে অনুপ্রবেশ ও পাঁচ জেলেকে ধরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি বিজিবি ও বিএসএফের সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ের পতাকা বৈঠকের কথা রয়েছে।
বিজিবি জানায়, গত ৩১ জানুয়ারি রাজশাহীর সোনাইকান্দি সীমান্তে অনুপ্রবেশ করে পদ্মা নদী থেকে পাঁচ জেলেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বিএসএফ। এরপর রেওয়াজ অনুযায়ী পতাকা বৈঠক হলেও তাদের মুক্তি দেয়া হয়নি। বরং ভারতীয় ভূ-খণ্ডে অনুপ্রবেশের অভিযোগ সাজিয়ে সে দেশের পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে তাদের। এ ঘটনার কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফকে চিঠি দেয় বিজিবি। কিন্তু পাল্টা প্রতিবাদ চিঠি পাঠিয়ে ঘটনার স্থান অস্বীকার করে বিএসএফ দাবি করেছে আটককৃতরা জেলে নয়, গরুর রাখাল। অনুপ্রবেশ করায় তাদের আটক করা হয়েছে।

পদ্মা থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া জেলেরা হলেন- রাজন হোসেন, নুরুজ্জামান দোয়েল, কাবিল হোসেন, শাহীন আলী ও শফিকুল ইসলাম। তাদের বাড়ি পবা উপজেলার গহমাবোনা এলাকায়। তারা সবাই এখন ভারতের কারাগারে রয়েছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.