Ultimate magazine theme for WordPress.

‘ফর্সাকারী’ ক্রিমের বিজ্ঞাপন দিলে ৫ বছরের কারাদণ্ড

রাস্তা-ঘাটে-টিভি-অনলাইনে ত্বকের রং ফর্সা ক্রিমের চমপ্রদ বিজ্ঞাপনের শেষ নেই। কিন্তু বিজ্ঞান বলছে এর কোনও অস্তিত্ব নেই। ফলে মানুষের রঙ ফর্সাকারী এমন প্রসাধনীর বিজ্ঞাপন বন্ধ করতে যাচ্ছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

যেকোনো মূল্যে এ ধরনের পণ্য ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে উদ্যোগ নিয়েছে মোদি সরকার। এমন বিজ্ঞাপন প্রচার করলে ৫ বছরের কারাদণ্ড এবং ৫০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে ইতোমধ্যে একটি খসড়া বিলের প্রস্তাব করেছে দেশটির স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দেশটির সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ফর্সা হওয়ার বিজ্ঞাপন বন্ধে (আপত্তিজনক বিজ্ঞাপন আইন, ১৯৫৪) একটি খসড়া বিলের প্রস্তাব করেছে। এই ধরনের ওষুধেরও কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। অথচ ওই সব আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেখে প্রভাবিত হয়ে সাধারণ মানুষ টাকা খরচ করে ওষুধ কিংবা ক্রিম কিনে থাকে।

যদিও এই ধরনের বিজ্ঞাপনে নিষেধাজ্ঞা হিসেবে বর্তমানেও একটি আইন আছে, কিন্তু ততোটা কার্যকর নয়, বর্তমান আইন অনুসারে এই ধরনের বিজ্ঞাপন দিলে জরিমানাসহ ৬ মাসের জেল অথবা যে কোনও একটি শাস্তি হবে এবং দ্বিতীয়বার একই বিজ্ঞাপন দিলে এক বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। কিন্তু এই লঘু শাস্তির বিধান থাকাই ক্রমশই বাড়ছে এই ধরনের বিজ্ঞাপন। এজন্য বিজ্ঞাপন বন্ধ করতে শাস্তির মাত্রা বাড়াতে চায় ভারত সরকার।

মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, সময় ও প্রযুক্তির পরিবর্তনকে মাথায় রেখে এই আইন সংশোধনের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এছাড়া সংশোধনী প্রস্তাবে বিজ্ঞাপনের সংজ্ঞার পরিধিও বাড়ানো হয়েছে। এতে ওষুধ-প্রসাধনী বা এ জাতীয় পণ্যের বিজ্ঞাপনে তালিকাভুক্ত ৭৮টি রোগ-ব্যাধির নাম উল্লেখ না করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.