Ultimate magazine theme for WordPress.

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৮০ শতাংশের মধ্যে সংক্রমণ তেমন গুরুতর নয়। ১৪ শতাংশের মধ্যে সংক্রমণ বা তাদের শারীরিক পরিস্থিতি গুরুতর এবং বাকি ৬ শতাংশ আক্রান্তের অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক। আক্রান্তদের পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা এমনিই তথ্য জানিয়েছেন। তবে ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, হার্টের সমস্যা, ক্যান্সার, হাঁপানির মতো সমস্যা থাকলে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। এই ভাইরাস আক্রান্তের ফুসফুসের কর্মক্ষমতা দ্রুত নষ্ট করে দেয়। ফলে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে বেশ কষ্ট হয় আর আক্রান্তদের ঘন ঘন জোরে জোরে নিশ্বাস নিতে হয়। বিশেষজ্ঞরা জানান, এক মিনিটে ৩০ বারের বেশি শ্বাস-প্রশ্বাস নিলে রক্তে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা যায়। যথাসময়ে সঠিক চিকিৎসা না হলে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহের ঘাটতি দেখা যায়। ফলে রোগী ধীরে ধীরে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এরপর ক্রমশ আক্রান্তের হার্ট, কিডনিসহ একাধিক অঙ্গ বিকল হতে শুরু করে এবং রোগী ধীরে ধীরে এগিয়ে যায় মৃত্যুর দিকে। তবে, বয়স্কদের ক্ষেত্রে করোনাভাইরাস খুবই বিপজ্জনক। করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত এক লাখ ১৪ হাজার ৮০৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন এবং প্রাণ হারিয়েছেন ৪ হাজার ৩১ জন। সব মিলিয়ে পুরো বিশ্ব এখন করোনাভাইরাসে আতঙ্কে তটস্থ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৮০ শতাংশের মধ্যে সংক্রমণ তেমন গুরুতর নয়। ১৪ শতাংশের মধ্যে সংক্রমণ বা তাদের শারীরিক পরিস্থিতি গুরুতর এবং বাকি ৬ শতাংশ আক্রান্তের অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক। আক্রান্তদের পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা এমনিই তথ্য জানিয়েছেন। তবে ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, হার্টের সমস্যা, ক্যান্সার, হাঁপানির মতো সমস্যা থাকলে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি।

এই ভাইরাস আক্রান্তের ফুসফুসের কর্মক্ষমতা দ্রুত নষ্ট করে দেয়। ফলে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে বেশ কষ্ট হয় আর আক্রান্তদের ঘন ঘন জোরে জোরে নিশ্বাস নিতে হয়।

বিশেষজ্ঞরা জানান, এক মিনিটে ৩০ বারের বেশি শ্বাস-প্রশ্বাস নিলে রক্তে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা যায়। যথাসময়ে সঠিক চিকিৎসা না হলে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহের ঘাটতি দেখা যায়। ফলে রোগী ধীরে ধীরে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এরপর ক্রমশ আক্রান্তের হার্ট, কিডনিসহ একাধিক অঙ্গ বিকল হতে শুরু করে এবং রোগী ধীরে ধীরে এগিয়ে যায় মৃত্যুর দিকে। তবে, বয়স্কদের ক্ষেত্রে করোনাভাইরাস খুবই বিপজ্জনক।

করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত এক লাখ ১৪ হাজার ৮০৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন এবং প্রাণ হারিয়েছেন ৪ হাজার ৩১ জন। সব মিলিয়ে পুরো বিশ্ব এখন করোনাভাইরাসে আতঙ্কে তটস্থ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.