Ultimate magazine theme for WordPress.

সাব্বির-মোসাদ্দেক কাকে নেয়া হবে একাদশে

বাংলাদেশ দলের ক্রিকেট ইতিহাসের এক মহা নায়ক মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে তার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপার স্বাদ পায় বাংলাদেশ দল। যদিও দুর্দান্ত এ ম্যাচের আগেই বিশ্বকাপ স্কোয়াডে রাখা হয় মোসাদ্দেককে। 

এদিকে ইনিংসের শেষ দিকে ঝড় তোলার জন্য ওয়ানডে বিশ্বকাপ দলে নেওয়া হয়েছে সাব্বির রহমানকে। যাকে বাংলাদেশের সেরা হার্ডহিটার বলে থাকেন অনেকেই। কিন্তু আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে সব হিসাব পাল্টে গিয়েছে। মোসাদ্দেক প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠলেন সাব্বিরের। এবার নির্বাচকেরাও এই দুজনকে নিয়ে মধুর সমস্যায় পড়ে গেছেন।

পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার পর সংবাদ সম্মেলনে আসেন সাব্বির আর মোসাদ্দেক। এমনিতে মাঠের বাইরে দুজনের সম্পর্ক দারুণ। জায়গা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হলো বাস্তবতা। সাব্বির প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেই নিজের জায়গা ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর। তিনি বলেন, ‘সবসময় কঠিন পরিস্থিতিতেই আমি খেলেছি। চ্যালেঞ্জ নিয়েই খেলেছি। এবারও কাজটা সহজ হবে না আমার। তবে চেষ্টা করব নিজের যেটা করার আছে, শতভাগ দেওয়ার চেষ্টা করব ও সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব।’

আসলে মোসাদ্দেককে নেওয়া হয়েছিল বিকল্প ভাবনা হিসেবে। মেহেদী হাসান মিরাজ যদি কার্যকর না হন, কিংবা কাঁধের চোটের কারণে মাহমুদউল্লাহ শেষ পর্যন্ত যদি বোলিং করতে না পারেন, কিংবা মিডল অর্ডারে কেউ যদি চোটে পড়েন তাহলে তাকে খেলানো হবে। কিন্তু  ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন সাব্বির। সেই ম্যাচেই সাতে নেমে ২৭ বলে ৫২ রানের ম্যাচ জেতানো এক অসাধারণ ইনিংস খেলেছিলেন মোসাদ্দেক। এতেই বদলে গেছে সমীকরণ।

আগামীকাল মঙ্গলবার (২৮ মে) দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এই ম্যাচেই হয়তো দুজনের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে যেতে পারে। সাব্বিরের সঙ্গে জায়গার লড়াই নিয়ে মোসাদ্দেক বলেন, ‘সেভাবে চিন্তা করছি না। আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। আমি চাই না যে কেউ খারাপ করুক আর আমি আসি। সবার আগে বাংলাদেশ দল। সবাই ভালো করুক, দল ভালো করুক। আমার সুযোগ আসবে আমি ভালো করার চেষ্টা করব।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.