Ultimate magazine theme for WordPress.

শুরুতেই নেই ২ উইকেট, চাপে অস্ট্রেলিয়া

স্টিভেন স্মিথের সেঞ্চুরির জবাবে জো বার্নসের সেঞ্চুরি। তবে অস্ট্রেলিয়ার যেমন স্মিথ ছাড়া কেউ হাফসেঞ্চুরির দেখাও পাননি। ইংল্যান্ডের তেমন হয়নি। বার্নসের ইনিংসটাকে সুন্দর করার কাজে সাহায্য করেছেন আরও দুই ব্যাটসম্যান, করেছেন হাফসেঞ্চুরি।

প্রথম ইনিংসে স্মিথের ১৪৪ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংসের পরও অস্ট্রেলিয়া অলআউট হয়ে যায় ২৮৪ রানে। জবাবে জো বার্নসের ১৩৩ রানে ভর করে ৩৭৪-এ থেমেছে ইংল্যান্ডের ইনিংস। প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকরা পেয়ে গেছে ৯০ রানের লিড।

জো বার্নস চোখ ধাঁধানো এক ইনিংস খেলেছেন, টেস্ট মেজাজের ব্যাটিং যাকে বলে! ৩১২ বল মোকাবেলায় ১৩৩ রানের ইনিংসে ইংলিশ ওপেনার বাউন্ডারি হাঁকান ১৭টি। তার সঙ্গে হাফসেঞ্চুরি পেয়েছেন জো রুট আর বেন স্টোকসও। রুট ৫৭ আর স্টোকস ৫০ রান করেন। ১৩৫.৫ ওভারে ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে অলআউট হয় ৩৭৪ রানে।

তবে ইংলিশদের ইনিংসটা আরও আগেই থামতে পারতো। ৩০০ রানেই ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ইংলিশরা। সেখান থেকে দলকে আরও অনেকটা দূর টেনে নেন লোয়ার অর্ডারের ক্রিস ওকস আর স্টুয়ার্ট ব্রড। ব্রড ২৯ রানে আউট হন। ওকস শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৩৭ রানে।

অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ৩টি করে উইকেট নেন প্যাট কামিন্স আর নাথান লিয়ন। দুটি করে উইকেট জেমস প্যাটিনসন আর পিটার সিডলের।

প্রায় একশ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই ব্রডের শিকার হয়ে ফিরেছেন ডেভিড ওয়ার্নার (৮)। কিছুক্ষণ পর ফিরে যান ব্যানক্রফটও। তিনি করেন ৭ রান। 
তৃতীয় দিনের তৃতীয় সেশনের খেলা চলছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ২ উইকেটে ৬৪ রান। স্টিভেন স্মিথ ১৭ আর উসমান খাজা ৩১ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে আছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.