Ultimate magazine theme for WordPress.

রান তাড়া করতে নেমে ধুঁকছে জিম্বাবুয়ে

বোলারদের ব্যর্থতায় বাংলাদেশকে আটকে রাখতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। প্রথম ওয়ানডের মতো আজও বড় সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ। তারপরও রান তাড়ায় নেমে মোটামুটি লড়াই করে যাচ্ছিল দলটি। কিন্তু একশ রান পার হতেই ৪ উইকেট হারিয়ে বসলো তারা।

লক্ষ্য ৩২৩ রান। রীতিমত কঠিন লক্ষ্যই বলা যায়। বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণ সামলে জিম্বাবুয়ের জন্য এত বড় লক্ষ্য তাড়া করা এই মুহূর্তে বলতে গেলে অসম্ভবই, সাম্প্রতিক সময়ে দুই দলের শক্তির পার্থক্যই বলে দিচ্ছে এমনটা।

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দ্রুতই ওপেনার রেগিস চাকবাকে হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। দলীয় ১৫ রানের মাথায় শফিউল ইসলামের বলে আউটসাইডেজ হয়ে কভারে লিটন দাসের সহজ ক্যাচ হন জিম্বাবুইয়ান ওপেনার (২)।

তিনাশে কামুনহুমামুইয়ের সঙ্গে দেখেশুনেই এগোচ্ছিলেন ব্রেন্ডন টেলর। কপাল মন্দ তার, মেহেদী হাসান মিরাজের দুর্দান্ত এক ফিল্ডিংয়ে রানআউট হয়ে যান টেলর। শফিউলের করা দশম ওভারের তৃতীয় বলটি মিডঅনে ঠেলে দিয়েই রান নিতে গিয়েছিলেন ১১ রান করা টেলর। এক হাতে বল ধরে আরেক হাতের দুর্দান্ত থ্রোতে স্ট্যাম্প ভেঙে দেন মিরাজ।

এরপর মিরাজ নিজেই বল হাতে নিয়ে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন জিম্বাবুয়ের আরেক অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান শন উইলিয়ামসকে (১৪)। ৬৭ রানে ৩ উইকেট হারায় সফরকারি দল। সেখান থেকে ১০০ পর্যন্ত নির্বিঘ্নেই গিয়েছিল জিম্বাবুয়ে।

দেখেশুনে খেলে হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন কামুনহুমামুই। কিন্তু তারপরই যেন দায়িত্ব শেষ মনে করেন জিম্বাবুইয়ান ওপেনার। তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণি তোয়াক্কা না করে হাঁটু গেরে মারতে গিয়েছিলেন, পেছনে চেয়ে দেখেন বল স্ট্যাম্প ভেঙে দিয়েছে। ৭০ বলে ৫১ রান করে বোল্ড কামুনহুমামুই।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৩২ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৫১ রান। ওয়েসলে মাদেভেরে ৩৭ আর সিকান্দার রাজা ২৯ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে আছেন।

এর আগে তামিম ইকবালের ১৫৮ রানের ক্যারিয়ারসেরা ইনিংসে ভর করে ৮ উইকেটে ৩২২ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহীম ৫৫, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৪১ আর মোহাম্মদ মিঠুন ১৮ বলে খেলেন ৩২ রানের ঝড়ো ইনিংস।

Leave A Reply

Your email address will not be published.