Ultimate magazine theme for WordPress.

কাল রাতে এল ক্লাসিকোতে মাাঠে নামছে বার্সা-রিয়াল

জমে উঠেছে লা লিগার পয়েন্ট টেবিল। দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ একে অপরের ঘাড়ে নি:শ্বাস ফেলছে। সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে হোঁচট খাওয়ার পর লেভান্তের বিপক্ষে হেরে শীর্ষস্থান দখল করা বার্সা থেকে ২ পয়েন্ট পিছিয়ে রিয়াল। সপ্তাহখানেকের ব্যবধানে শীর্ষস্থান হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগেও ম্যানচেস্টার সিটির কাছে হেরেছে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা। এমন ছন্দহীন রিয়াল রবিবার (১ মার্চ) সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে লিগের শেষ এল ক্লাসিকোতে মুখোমুখি হচ্ছে লিওনেল মেসি-জেরার্ড পিকেদের।

বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় ভক্তরা ফেসবুক লাইভে ম্যাচটি উপভোগ করতে পারবেন। ন্যু ক্যাম্পে গোলশূন্য ড্র হয় বার্সা-রিয়ালের প্রথম এল ক্লাসিকো। শিরোপা পুনরুদ্ধারে এই ম্যাচে রিয়ালের জয় অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অন্য দিকে স্বাগতিকদের মাঠে জয় পেলে শিরোপার পথে আরো এগিয়ে যাবে কিকে সেতিয়েনের বার্সা।

তবে লিগের দ্বিতীয় ও শেষ এল ক্লাসিকোতে জয় চান বার্সেলোনার ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে। শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে টিকে থাকতে হলে জয় ছাড়া অন্য কিছুই ভাবতে পারছেন না তিনি।

লা-লিগায় টানা চার জয়ের স্বাদ নিয়ে এল ক্লাসিকোতে রিয়ালের মুখোমুখি হবে বার্সেলোনা। তবে ধাক্কাও খেয়েছে দলটি। গত বুধবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নাপোলির বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে বার্সা। তবে এই স্মৃতি ভুলে যেতে চায় বার্সেলোনা। কারণ রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচটি মর্যাদার লড়াই।

স্প্যানিশ তারকা বলেন, ‘আমাদের জন্য এই জয়টি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। পা পিছলালেই শিরোপা লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়বো। তবে এই ম্যাচটি আরো একটি কারণে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এল ক্লাসিকোর ম্যাচ এটি। এমন ম্যাচ জিততে মরিয়া থাকে দু’দলই। আমরাও জিততে চাই। দলের সবাই ম্যাচটি জিততে চাইছে।’

ম্যাচটি জিতলেই শীর্ষস্থান ফিরে পাবে রিয়াল। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর বিপক্ষে ম্যাচটিকে গুরত্বপূণই মনে করছেন রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও রামোস। তার মতে, বার্সার মূলশক্তি নিজেদের পায়ে বল ধরে রাখা, আর বল কেড়ে নিতে পারলে জয়ের রাস্তা উন্মুক্ত হয়ে যায়। আর সেটিই করতে চান তারা।

গোলডটকমকে দেয়া সাক্ষাতকারে রামোস বলেন, ‘তাদেরকে বেশি চেপে ধরে রাখাটা ঝুঁকিপূর্ণ। কিন্তু এটা তাদের সমস্যায় ফেলে। অতীতে এটা খুব বেশি ঘটেনি, সম্ভবত প্রতিপক্ষ দলগুলো তাদের অনেক বেশি শ্রদ্ধা করে সেই জন্য। আমি মনে করি, এটাই চাবিকাঠি: মাঠে তাদের ওপর অনেক বেশি চাপ ধরে রাখা এবং তাদের পা থেকে বল কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করা।

‘তাদের আক্রমণভাগে খুব বিপজ্জনক কয়েকজন খেলোয়াড় আছে যারা ম্যাচের ফল নির্ধারণ করে দিতে পারে, ব্যাপারটা সবসময়ই চিন্তার। আশা করি, তেমন কিছু হবে না। আমরা প্রথম মিনিট থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ ধরে রাখতে পারব।’

লিগে ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে রিয়ালের পয়েন্ট ৫৩।

Leave A Reply

Your email address will not be published.