Ultimate magazine theme for WordPress.

এমন উদযাপনের কারণ জানালেন মুশফিক

সেঞ্চুরির পর ব্যাট শূন্যে ভাসিয়ে কিছুটা সাদাসিধে উৎযাপন। কিন্তু ডাবল সেঞ্চুরিতে পৌঁছানোর পর উদযাপনে ছিল পুরো ভিন্ন এক চিত্র। সচরাচর মুশফিককে এমন উৎযাপনে দেখাই যায়না। দ্বিশতকের পর ডাইনোসরের ক্ষিপ্রতা প্রকাশের মাধ্যমে উদযাপনের কাজটা সেড়েছেন। তবে কাউকে উদ্দেশ্য করে মুশফিকের এমন অভিনব উল্লাস নয়, নিজেই জানালেন আসল কারণ।

১৫৪ তম ওভারের দ্বিতীয় বলে লোভুকে চার মেরে ডাবল পূর্ণ করেন দেশের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান। ডাবল হাঁকানোর পর ব্যাট, হেলমেট খুলেই চেহারায় আগ্রাসী এক ভাব প্রদর্শন করেন মুশফিক, অনেকটা কাউকে ভয় পাওয়ানোর মত দৃশ্য। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে স্বাভাবিকভাবেই কৌতুহলী প্রশ্ন উদযাপনে কি বোঝানোর চেষ্টা?

মুশফিকুর রহিম জানান ডাবল সেঞ্চুরি উৎসর্গ করেছেন ছেলে মায়ানকে। উদযাপনটাও ছিল মায়ানের ডাইনোসোর প্রীতির প্রতিচ্ছবি, ‘এটা (উদযাপন) আমি আগে থেকে চিন্তা করি নি। আমার ছেলে আসলে ডাইনোসরের খুব বড় ফ্যান। ও সবসময় ডাইনোসর দেখলে অন্যরকম সেলিব্রেশন করে। সেইটাই জাস্ট করার চেষ্টা করছিলাম। আমার ডাবল সেঞ্চুরিটা ওর (মায়ান) জন্য।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে নিরাপত্তা ইস্যুতে নিজের নাম সরিয়ে নিয়েছেন উইকেট রক্ষক এই ব্যাটসম্যান। ফলে ভারত সফরের পর প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমেছেন দেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিক। মাঝে তাকে নিয়ে বিতর্কের হাওয়া ভয়ে যায় ক্রিকেটাঙ্গণে। ডাবল সেঞ্চুরির পর ছেলের জন্য আগ্রাসী উদযাপন হলেও সেঞ্চুরি তুলে সাদামাটা উদযাপনেও চাইলে খুঁজে পাওয়া যায় কোন ঈঙ্গিত।

কিন্তু মুশফিক সরাসরি জানালেন ছিলনা এমন কোন বার্তা, তবে ডাবলের পর উদযাপন করবেন ছেলের জন্য ছিল পূর্ব পরিকল্পনা। মুশফিক যোগ করেন, ‘সেঞ্চুরির পরের উদযাপনটা কারো উদ্দেশ্যে ছিলো না। আমি আসলে এরকম করে, আমার যতটুকু ক্যারিয়ারই হয়েছে প্রতিশোধ বা প্রতিবাদের জন্য সেলিব্রেশন করিনি। আমি সবসময় মনে করি যে আমি আমার নিজের সঙ্গে ফাইট করি।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.