Ultimate magazine theme for WordPress.

করোনা ঠেকাতে মালয়েশিয়ায় লকডাউন ঘোষণা

করোনা ভাইরাসের (কভিড-১৯) বিস্তাররোধে দেশজুড়ে লকডাউন কার্যকরের ঘোষণা দিয়েছে মালয়েশিয়া। আজ মঙ্গলবার ১৮ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ লকডাউন কার্যকর থাকবে। গতকাল সোমবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন এক ভাষণে এ ঘোষণা দেন। খবর স্ট্রেইট টাইমস।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন জানান, তার সরকার এখন করোনা ভাইরাসের নতুন সংক্রমণ প্রতিরোধকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে, যা আরো বেশি মানুষকে আক্রান্ত করতে পারে। এ অবস্থায় কঠোর পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন। এজন্য সরকার বিদ্যমান আইন অনুযায়ী ১৮ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত চলাচলে নিয়ন্ত্রণ আরোপের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি জানান, এ সিদ্ধান্তের অর্থ হলো, সুপারমার্কেট ও মুদিদোকানের মতো নিত্যব্যবহার্য প্রতিষ্ঠান বাদে বাকি সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে। ঘোষিত সময়ে ইউটিলিটি, টেলিকমিউনিকেশন, পরিবহন, ব্যাংক, কারাগার, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ফার্মেসি, বন্দর ও খাদ্য সরবরাহকারীর মতো অপরিহার্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বাদে সরকারি-বেসরকারি বাকি সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। ধর্মীয়, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ইভেন্টসহ সব ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ সময় কোনো মালয়েশীয় দেশের বাইরে যেতে পারবে না। কোনো পর্যটক বা বিদেশী মালয়েশিয়া প্রবেশ করতে পারবে না।

মুহিউদ্দিন আরো বলেন, আতঙ্কিত হবেন না, উদ্বিগ্ন হবেন না, বরং শান্ত থাকুন। আমি বিশ্বাস করি, সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, তার মাধ্যমে আমরা এ প্রকোপ মোকাবেলা করতে পারব। তিনি সবাইকে সরকারি সিদ্ধান্ত মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিল নিয়মিত বৈঠক করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবে।

মালয়েশিয়ায় এখন পর্যন্ত ৫৬৬ জন আক্রান্ত হলেও কোনও মৃত্যুর ঘটনা নেই। এছাড়া সুস্থ হয়েছে ৪২ জন এবং ৫২৪ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে।

উল্লেখ্য, চীনে করোনা ভাইরাস প্রায় নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। কিন্তু চীনের বাইরে অন্যান্য দেশে ব্যাপক আকারে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এতে বিশ্বব্যাপী প্রচণ্ড আতঙ্ক ও ভয়ের সৃষ্টি হয়েছে।

করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে ৬৬৯ জনসহ মোট মৃত্যু হয়েছে ৭ হাজার ১৭১ জনের। শুধু চীনেই মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ২২৬। চীনের বাইরে মারা গেছে ৩ হাজার ৯৪৫ জন।

এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ৬০৫ জন। এর মধ্যে ৭৯ হাজার ৮৮১ জন সুস্থ হয়েছে বাড়ি ফিরেছেন। এছাড়া চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৮৮১ এবং চীনের বাইরে ১ লাখ ১ হাজার ৭২৪ জন মানুষ।

বর্তমানে ৯৫ হাজার ৫৫৩ জন আক্রান্ত রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৮৯ হাজার ৩৯০ জনের অবস্থা সাধারণ (স্থিতিশীল অথবা উন্নতির দিকে) এবং বাকি ৬ হাজার ১৬৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আক্রান্তের অনুপাতে মৃত্যুর হার ৮ শতাংশ এবং সুস্থতার হার ৯২ শতাংশ।

চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১৬২টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে-

এর মধ্যে চীনে ৩ হাজার ২২৬, ইটালি ২ হাজার ১৫৮, ইরান ৮৫৩, স্পেন ৩৪২, ফ্রান্স ১৪৮, যুক্তরাষ্ট্র ৯১, দক্ষিণ কোরিয়া ৮১, যুক্তরাজ্যে ৫৫ জন সহ ১৬২টি দেশে মৃত্যু হয়েছে ৭ হাজার ১৭১ জনের।

Leave A Reply

Your email address will not be published.