Ultimate magazine theme for WordPress.

করোনার বিরুদ্ধে লড়াই : মাস্ক বানিয়ে অবদান রাখছে তাইওয়ানের বন্দিরা

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের ১১৯টি দেশ। এই ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে তাইওয়ানেও। দেশটির তাইপের একটি কারাগারের বন্দিরা মাস্ক বানিয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অবদান রাখছেন।
তাইপের কারাগারের কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে ঘেরা একটি স্থানে সেলাই মেশিন দিয়ে বন্দিরা মাস্ক তৈরীতে কাজ করে যাচ্ছেন। তারা ওভারটাইম কাজ করে মাস্ক তৈরীতে অবদান রাখছেন।
করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করছেন ওই বন্দিরা।
এর আগে বন্দিরা সাধারণত তাইওয়ানের কারাগারের সেলাই কারখানায় ইউনিফর্ম তৈরি করতেন। কিন্তু করোনাভাইরাস তাইওয়ানে ছড়িয়ে পড়ার পরে তারা মাস্ক তৈরি করতে শুরু করেন। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময় থেকে এই কাজ শুরু করে তারা প্রায় ৫২০০০ মাস্ক তৈরী করেছেন।
এ বিষয়ে ৫০ বছর বয়সী বন্দি ইউহ জানান, তিনি এই কাজ করার মধ্যে দিয়ে নিজের পরিবারকে হৃদয়ে ধারণ করছেন।

এএফপিকে তিনি বলেছেন, তারা (পরিবারের সদস্যরা) যখন আমাকে দেখতে এসেছিল, তারা জানিয়েছিল যে, জেলের বাইরে মাস্কের ভীষণ সংকট। আমি তাদের বলেছি, তোমাদের বাবা এখানে মাস্ক তৈরি করছেন। তোমরাও এর সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

তিনি বলেন, যতবার আমি মাস্কগুলি সেলাই করি, আমি মনে করি যে, এটি আমার পরিবারকে কিছুটা হলেও সুরক্ষা এনে দিতে পারে।
ইউহ বলেন, এই মাস্ক তৈরীর বিষয়টি কেবল আমাদের সমাজে অবদান রাখতেই সহায়তা করে না। এর মধ্য দিয়ে কারাগারে বন্দিদের আত্মসম্মান বোধও বেড়ে যাচ্ছে।
তিনি জানান, যেসব বন্দি এই কাজের জন্য স্বেচ্ছাসেবায় নিয়োজিত তারা খুব দ্রুত মেশিনগুলির সঙ্গে মানিয়ে নিচ্ছেন।
বন্দিরা সেলাই মেশিনের সাহায্যে ফেব্রিক সেলাইয়ের কাজ করছে। প্যাকেজিংয়ের আগে তারা কাঁচি দিয়ে মাস্কগুলি সাবধানে ছাঁটাই করে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.