Ultimate magazine theme for WordPress.

আফগান যুদ্ধ বন্ধে যুক্তরাষ্ট্র-তালেবান চুক্তি স্বাক্ষর

আফগানিস্তানে দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে চলমান যুদ্ধ বন্ধে তালেবানের সঙ্গে ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষর করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এতে দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে চলা আফগান যুদ্ধের অবসান ঘটবে বলে আশা বিশ্লেষকদের।

শনিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) কাতারের দোহায় যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এবং তালেবান নেতাদের উপস্থিতিতে এই চুক্তি সই হয়। খবর বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

যুদ্ধবিদ্ধস্ত আফগান নাগরিকরাও আশা করছেন এই চুক্তির ফলে দেশের ভেতরে আমেরিকার সাথে দীর্ঘ যুদ্ধ অবসানের পথ তৈরি হবে। কাবুলে নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাস এক টুইট বার্তায় বলেছে, আফগানিস্তানের জন্য স্মরণীয় একটি দিন শনিবার।

চুক্তি অনুযায়ী, তালেবানরা চুক্তির সব শর্ত মেনে চললে আগামী ১৪ মাসের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব সৈন্য প্রত্যাহার করবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা।

চুক্তির পর এখন থেকে আফগানিস্তানে আর কোনো হামলা চালাবে না তালেবান। তাদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় জঙ্গি গোষ্ঠী আল-কায়েদাকে কোনো তৎপরতাও চালাতে না দেওয়ার অঙ্গীকার করেছে তারা।

বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এই চুক্তির ফলে আফগানিস্তানে মোতায়েনরত সৈন্যদের ধারাবাহিকভাবে প্রত্যাহার করে নেবে যুক্তরাষ্ট্র। তবে চুক্তিতে বিভিন্ন ধরনের জটিলতার থাকায় এটি দীর্ঘস্থায়ী হবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন অনেক বিশ্লেষক।

এদিকে চুক্তি স্বাক্ষরের কয়েক ঘণ্টা আগে জাতির কল্যাণে আফগানিস্তানে যেকোনো ধরনের হামলা বন্ধ রাখতে সব যোদ্ধাদের নির্দেশ দিয়েছে তালেবান। তালেবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, আমরা প্রত্যাশা করছি, শান্তি চুক্তি এবং সমঝোতার সময় যুক্তরাষ্ট্র তাদের অঙ্গীকারের প্রতি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ থাকবে।

তিনি বলেন, তালেবান নিয়ন্ত্রিত ভূখণ্ডের আকাশে বিদেশি সামরিক যুদ্ধবিমান এখনো ধারাবাহিকভাবে উড়ছে; এটা অত্যন্ত বিরক্তিকর এবং উসকানিমূলক। কিন্তু যোদ্ধারা আমাদের নির্দেশের প্রতি অটল রয়েছে।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্ক এবং ওয়াশিংটনে জঙ্গিগোষ্ঠী আল-কায়েদার হামলার পর দেশটিতে হামলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। ১৮ বছর ধরে আফগানিস্তানে মার্কিন হামলায় কয়েক লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটে।

সেই সময় ওয়াশিংটন অভিযোগ করে, জঙ্গিগোষ্ঠী আল-কায়েদা এবং এর প্রধান ওসামা বিন লাদেনের সঙ্গে যোগসাজশ রয়েছে তালেবানের। দেশটির ক্ষমতা থেকে অপসারিত হলেও এখনো প্রায় ৪০ শতাংশ ভূখণ্ডের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে তালেবানের হাতে।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের শঙ্কা, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহার করে নেয়া হলে তা তালেবান যোদ্ধাদের আন্তর্জাতিক বৈধতা দেবে।

চুক্তি সই উপলক্ষ্যে তালেবানের রাজনৈতিক শাখার প্রধান মোল্লাহ আব্দুল গনি বারাদারের নেতত্বে গোষ্ঠীটির ৩১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল কাতারে পৌঁছেছে। দোহার শেরাটন হোটেলে ঐতিহাসিক এই চুক্তি সই অনুষ্ঠানে অংশ নেয় পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, উজবেকিস্তান ও তাজিকিস্তানের সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, চুক্তি স্বাক্ষরের কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আফগানিস্তানে মোতায়েনকৃত ১৩ হাজার সৈন্যের মধ্যে থেকে প্রায় ৫ হাজার ৪০০ জনকে ফিরিয়ে আনার পথ তৈরি হবে। পশ্চিমা বিশ্বের অন্যান্য দেশের সৈন্যও তালেবানের সহিংসতার মাত্রার ওপর ভিত্তি করে ধীরে ধীরে কমিয়ে আনা হবে বলে জানান তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.