Ultimate magazine theme for WordPress.

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় মাকে হত্যার দায়ে ছেলের মৃত্যুদণ্

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় মাকে হত্যার দায়ে ছেলের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ অরূপ কুমার গোস্বামী এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জুয়েল সরকার রানা (২৮) উপজেলার আংদিয়া গ্রামের আজিজুল সরকারের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তাকে আদালতে উপস্থিত করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর দুপুরে আসামি জুয়েল সরদার তার মা বানেরা খাতুনের সাথে পারিবারিক কলহ সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে আসামি জুয়েল তার মায়ের ওপর উত্তেজিত হয়ে প্রথমে ধারালো হাঁসুয়া দিয়ে মুখে, নাকে, ঘাড়ে, ডান হাতের বাহুতে, বাম হাতের কনুইতে কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। পরবর্তীতে কোদালের ধারালো পাশ দিয়ে মুখমন্ডলের ওপর উপর্যুপরি কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত কাটা জখম করে নৃশংসভাবে হত্যা করে দ্রুত পালিয়ে যায়।

ঘটনার পরদিন জুয়েলকে একমাত্র আসামি করে দৌলতপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন জুয়েলের বাবা আজিজুল সরদার।

মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ০১ জানুয়ারি হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ। পরে একই বছরে ১৯ জুনে অভিযোগ গঠন পূর্বক স্বাক্ষ্য শুনানী ও বিচার কার্য শুরু করেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌশুলী অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, নিজ গর্ভধারিনী মা’কে নির্মম ভাবে হাঁসুয়া এবং কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যার মতো হৃদয়স্পর্শী ঘটনা বিজ্ঞ আদালতকেও নাড়া দিয়েছে। এমামলায় রাষ্ট্রপক্ষের ১৫ জন স্বাক্ষির স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে নিহত মা বানেরা খাতুনের ছেলে আসামি জুয়েল রানার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় হত্যাদায়ে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত।

Leave A Reply

Your email address will not be published.